তিতাসে হোল্ডিং নাম্বার দিয়ে লাখ টাকার অবৈধ বাণিজ্য


তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি :
কুমিল্লার তিতাস উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে একযোগে হোল্ডিং নম্বর বাণিজ্য শুরু করেছে ইউনিয়ন উন্নয়ন সংস্থা নামের একটি এনজিও। ইউনিয়নের প্রতিটি ঘরে লাগানো হচ্ছে হোল্ডিং নম্বর। হোল্ডিং নাম্বার লাগানোর ফলে কী উপকার পাওয়া যাবে গ্রামের সাধারণ মানুষ তাও জানে না। গ্রামের হতদরিদ্র লোকজনের অভিযোগ আমাদের মাথা গোঁজার ঠাঁই নাই, আমরা হোল্ডিং নাম্বার দিয়ে কী করব। বড় মাছিমপুরের বিধবা ফুলেছা বেগম. বিধবা রুহিতন নেছা ও শহীদুল ইসলাম জানান, আমাদের ঘরেও এসেছে, আমরা রাখব না বললে তারা আমাদের জানায়, এখন রাখবেন না পরে ঢাকা থেকে ৪-৮ হাজার টাকা দিয়ে হোল্ডিং নম্বর আনতে হবে। আমরা ভয়ে ৩ ঘরে ৩শ’ টাকা দিয়ে নম্বর প্লেট রাখি। উপজেলার সাতানী, জগতপুর, বলরামপুর, কড়িকান্দি, কলাকান্দি, ভিটিকান্দি, নারান্দিয়া, জিয়ারকান্দি ও মজিদপুর ইউনিয়নে একযোগে এই প্রকল্পের কাজ চলছে। প্রতি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে হাতে নিয়ে চালাচ্ছে তাদের হোল্ডিং বাণিজ্য। সরকারি কোনো বিধি-বিধান ছাড়াই প্রতিটি ঘরে হোল্ডিং নাম্বার নামের একটি টিনের সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে হোল্ডিং নম্বর প্লেট বন্টন প্রকল্প নামে জাতীয় মনোগ্রামযুক্ত রশিদের মাধ্যমে ঘরপ্রতি ১ শ’ টাকা করে তিতাস উপজেলা থেকে লাখ লাখ টাকা ভাগিয়ে নিচ্ছে প্রকল্পটি। গরিব-অসহায় কোনো ব্যক্তি যদি এই হোল্ডিং নাম্বার নিতে অনীহা প্রকাশ করে তাদের বিভিন্ন প্রশাসনিক হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নারান্দিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান আক্তার জান্না, হোল্ডিং নম্বর দিয়ে টাকা নিচ্ছে কিনা আমার জানা নেই।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জেলা প্রশাসকের অনুমতিপত্রে ইউনিয়নভিত্তিক প্রতিটি ঘরে হোল্ডিং নম্বর স্থাপনের জন্য বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা থাকলেও তার বিপরীতে কোনো টাকা নেয়ার কথা উল্লেখ নেই।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জেলা প্রশাসক মোঃ জামাল হোসাইন ও তিতাস উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম হোল্ডিং নাম্বার লাগানোর জন্য টাকা নেয়ার অনুমতি না দিলেও প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট লোকজন হোল্ডিং নম্বর স্থাপনের নামে ১ শ’ টাকা করে আদায় করছে।
উপজেলা একাধিক সচেতন ব্যক্তি জানান, ঘরে ঘরে হোল্ডিং নম্বর লাগোনো যদি সরকারি কোনো সিদ্ধান্ত হতো, তাহলে টেলিভিশন ও পত্র-পত্রিকায় সরকারিভাবে ঘোষণা দিতো। যেভাবে জš§নিবন্ধন ও ভোটের আইডি কার্ডের জন্য টেলিভিশর ও গণমাধ্যমে সরকারিভাবে ঘোষণা হয়েছিল।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply