তিতাসে দিনে ২০ ঘন্টা লোডশেডিং : ভ্যাপসা গরমে বিপর্যস্ত জনজীবন

নাজমুল করিম ফারুক তিতাস থেকে :
কুমিল্লার তিতাসে দিনে ১৮-২০ ঘন্টা লোডশেডিং এবং ও ভ্যাপসা গরমে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বর্তমান সরকার রমজান মাসে লোডশেডিংয়ের মাত্রা কমিয়ে আনার জন্য ৬ ঘন্টা সিএনজি পাম্প বন্ধ এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে বিদ্যুৎ সরবরাহ করার ঘোষণা থাকলেও লোডশেডিংয়ের মাত্রা আগের তুলনায় বেড়েছে বলে অনেক গ্রাহক অভিযোগ তুলেছেন। বিশেষ করে যতক্ষণ বিদ্যুৎ পাওয়া যায় তার মধ্যে অধিকাংশ সময়ই লো-ভোল্টজ থাকে।
দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর বিদ্যুৎ সঞ্চালন কেন্দ্র সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন এ সঞ্চালন কেন্দ্র থেকে ৩টি ফিডার লাইনে ২ঃ১ হারে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। অর্থাৎ ২ ঘন্টা লোডশেডিংয়ের পর এক ১ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ করার কথা। কিন্তু সে হিসেবও গড়মিল হয়ে যাচ্ছে। গৌরীপুর সঞ্চালন কেন্দ্রের হিসেব মতে ১৬ ঘন্টা বিদ্যুৎ লোডশেডিং থাকার কথা, সেই ক্ষেত্রে ১৮ থেকে ২০ ঘন্টাও লোডশেডিংয়ের মাত্রা ছাড়িয়ে যায়।
এ ব্যাপারে গৌরীপুর সঞ্চালন কেন্দ্রের কর্মকর্তা রফিক জানান, এসি ফিডার লাইনের পাওয়ার ট্রান্সফর্মারটি পিক আওয়ারে লোড নিতে না পারায় এ লাইনে লোডশেডিং বেশি হয়। পাওয়ার ট্রান্সফর্মারটি পাল্টিয়ে নতুন ট্রান্সফর্মার বসিয়ে সংযোগের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। রাতের বেলায় ৩ থেকে ৪ ঘন্টা লোডশেডিংয়ের পর ২৫/৩০মিনিট বিদ্যুৎ পাওয়া যায়। এ ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে গৌরীপুর বিদ্যুৎ সঞ্চালন কেন্দ্র ঘেরাও করে রাখে সাধারণ মানুষ। ২৪ ঘন্টার মধ্যে সর্বোচ্চ ৮ ঘন্টা বিদ্যুৎ পাচ্ছে অধিকাংশ গ্রাহক। বাকী ১৬ ঘন্টা ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের কবলে পড়ে চরম ভোগান্তিতে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠছে সাধারণ মানুষ।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply