ইংল্যান্ডের মাটিতে ইংল্যান্ড-বধ কাব্য রচনা করল বাংলাদেশ


স্পোর্টস ডেস্ক, ১০ জুলাই ২০১০ (কুমিল্লাওয়েব ডটকম) :
টেস্ট খেলুড়ে সব দেশের বিপক্ষে জয় পেল বাংলাদেশ। জয়ের লক্ষ্য ২৩৭ রান তাড়া করতে নেমে ইংল্যান্ডের ইনিংস গুটিয়ে যায় ২৩১ রানে। ফলে ইংল্যান্ডকে হার মানতে হয় ৫ রানে। প্রথমে ব্যাট করে ইমরুল কায়েসের অর্ধ-শতকের সুবাদে ৫০ ওভারে সফরকারী বাংলাদেশ করে ৭ উইকেটে ২৩৬ রান।
ব্রিস্টলের কাউন্টি গ্রাউন্ডে জেতার লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালোই করে ইংল্যান্ড। কিন্তু ৪৯ ও ৫৮ রানের মাথায় পরপর দুই উইকেট পড়ে যাওয়ায় বিপদে পড়ে ইংল্যান্ড।এ অবস্থায় দলের হাল ধরে বিপদ থেকে দলকে টেনে তোলার চেষ্টা করেন জোনাথন ট্রট ও পল কলিংউড। কিন্তু ট্রট ছাড়া সুবিধা করতে পারেননি অন্য ব্যাটসম্যানরা। জোনাথন ট্রট করেন ৯৪ রান। ৮৬ রানের মাথায় ১০ রান করে আব্দুর রাজ্জাকের বলে এলবিডব্লিউয়ে ফাঁদে পড়েন। দলের সঙ্গে চার রান যোগ হতেই আবারো এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়ে বিদায় নেন ইয়ন মর্গান (১)।এছাড়া সাজঘরে ফিরে যান অ্যান্ড্রু স্ট্রাউস ৩৩ রান করেন। স্টুয়ার্ট ব্রড ২১, ক্রেগ কিসওয়েটার ২০, লুক রাইট ১৫ রান ও শাহজাদ ৫ রান করেন।চোট পাওয়ার পরও মাঠে নেমেছেন ইয়ান বেল। তারপরও হার এড়াতে পারেনি ইংল্যান্ড। সেই সঙ্গে ইংল্যান্ডের মাটিতে ইংল্যান্ড-বধ কাব্য রচনা করেছে বাংলাদেশ।
এর আগে টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাট করতে পাঠায় ইংল্যান্ড। শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি। দলীয় ১৯ রানেই সাজঘরে ফিরে যান উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল। এই ১৯ রানের ১৮ই এসেছে তার ব্যাট থেকে। তারপরও প্রত্যাশা অনুযায়ী, ঝড় তুলতে পারেননি তিনি।জীবনের দ্বিতীয় একদিনের শতকের পথে এগিয়ে যাচ্ছিলেন ইমরুল। অন্যপ্রান্তে ব্যাটসম্যানরা যখন আসা-যাওয়ার খেলায় ব্যস্ত, ইমরুল তার চতুর্থ অর্ধ-শতকে পৌঁছান ৭৪ বলে, চারটি চারের সাহায্যে।
দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ইমরুল কায়েস ও জুনায়েদ সিদ্দিকী দলের সঙ্গে ৪৬ রান যোগ করে প্রাথমিক বিপদ কিছুটা সামাল দেন। স্টুয়ার্ট ব্রডের লেগ স্ট্যাম্পের বাইরের শর্ট বল ফাইন লেগের দিকে খেলার চেষ্টা করেন জুনায়েদ সিদ্দিকী। কিন্তু ব্যাটের পাশ দিয়ে বল চলে যায় উইকেটরক্ষক কিসওয়েটারের হাতে। তখন অবশ্য একটু শব্দ শোনা গিয়েছিল। সঙ্গে সঙ্গে আউটের আবেদন জানান ইংল্যান্ডের ফিল্ডাররা। আঙ্গুল তুলে বসেন আম্পায়ার রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ। পরে টেলিভিশন রিপ্লেতে দেখা যায় বল আসলে ব্যাট ছুঁয়ে যায়নি। ‘দুর্ভাগা’ জুনায়েদ করেন ২১ রান। দুর্ভাগ্য মোহাম্মদ আশরাফুলেরও। ১৪ রান করে রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। তবে জহুরুল করেন ৪০।
এক পর্যায়ে মনে হচ্ছিল বাংলাদেশের রান হয়তো আড়াই শ’ ছাড়িয়ে যাবে। কিন্তু খেলা যতো গড়িয়েছে বাংলাদেশের রান তোলার গতি ততোই কমেছে। দলের রান যখন ৬ উইকেটে ১৯৪, তখন ‘পাওয়ার প্লে’ নেয় বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ পাঁচ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে করে মাত্র ৩৮। ইংল্যান্ডের বোলারদের মধ্যে আজমল শাহজাদ ৩ উইকেট নেন, ৪১ রানে।
তিন ম্যাচের সিরিজে ১-১ তে সমতা ফিরিয়ে আনলো বাংলাদেশ।

Check Also

মুস্তাফিজের বিশ্ব রেকর্ড

  কুমিল্লাওয়েব ডেস্ক :– বিশ্ব ক্রিকেটের ইতিহাসের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ওয়ানডে ও টেস্ট দুই ধরনের ...

Leave a Reply