নিয়ম না থাকা সত্বেও বিচারকের অর্ডার’র হুবহু ফটোকপি জনসাধারণের হাতে


কুমিল্লা, ০৪ জুলাই ২০১০ (কুমিল্লাওয়েব ডটকম) :
কুমিল্লা জেলা জজ কোর্ট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কোর্টে বিচারাধীন কোন মামলার এজহার, নালিশী আর্জি, তদন্ত প্রতিবেদন এর আদেশনামার কোন ফটোকপি সরবরাহ করা হয় না। আগে এজহার ও নালিশী আর্জির ফটোকপি সরবরাহ করা হলেও বিজ্ঞ বিচারকের আদেশনামার কোন ফটোকপি সরবরাহ করা হত না। বিগত কয়েকমাস আগে এজহারের ফটোকপিতে গরমিল পরিলক্ষিত হওয়ায় কুমিল্লার বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ একেএম জহির উদ্দিন এবং বিজ্ঞ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট বেগম ফাতেমা নজীব এর নির্দেশক্রমে এজহার ও নালিশী আর্জির ফটোকপি সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়।
বর্তমানে কুমিল্লার মাননীয় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের ফৌজদারী রিভিশন মামলা নং ১৯৭/১০ তাং ২৩ জুন ২০১০ আদেশ নামার ফটোকপি (যা বিজ্ঞ বিচারকের স্বাক্ষর বিহীন) জনৈক শাহ আলম খান পিতা মৃত আব্দুল মজিদ খান সাং অশোকতলা, থানা কোতয়ালী মডেল জিলা কুমিল্লা গত ২ ও ৩ জুলাই সন্ধ্যায় প্রকাশ্যে এলাকায় জনগনের সামনে প্রদর্শন পূর্বক সম্পত্তির মালিক না হওয়া সত্ত্বেও জোরপূর্বক এবং ক্ষমতাশীন দলের প্রকাশ্য মদদে অশোকতলাস্থ সাবেক ৬০০ দাগের জমিতে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে মাটি ভরাট ও সীমানা দেয়াল নির্মাণ করছে বিধায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ এড়াতে জনৈক আবুল কালাম আজাদ কোতয়ালী মডেল থানায় জিডি করলে (জিডি নং ১১৩ তাং ২/৭/১০ইং) ঘটনাস্থলে পুলিশ আসলে উক্ত শাহ আলম ও তার লোকজন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আদেশনামার ফটোকপি প্রদর্শন করে। পুলিশ উক্ত ফটোকপি দেখে তাদেরকে কাজ করতে নিষেধ না করে বরং কাজ চালিয়ে যেতে বলে। যদিও এরূপ ফটোকপি গ্রহণযোগ্য নয় এবং কিভাবে আদালতের আদেশ নামার ফটোকপি উক্ত শাহ আলম খান পেল জানতে চাইলে সে জানায় আদালতের পেশকার এর নিকট হতে গ্রহণ করা হয়েছে।
কুমিল্লা জেলা জজ কোর্ট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কোর্টে বিচারাধীন কোন মামলার এজহার, নালিশী আর্জি, তদন্ত প্রতিবেদন এর আদেশনামার কোন ফটোকপি সরবরাহ করা হয় না। আগে এজহার ও নালিশী আর্জির ফটোকপি সরবরাহ করা হলেও বিজ্ঞ বিচারকের আদেশনামার কোন ফটোকপি সরবরাহ করা হত না। বিগত কয়েকমাস আগে এজহারের ফটোকপিতে গরমিল পরিলক্ষিত হওয়ায় কুমিল্লার বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ একেএম জহির উদ্দিন এবং বিজ্ঞ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট বেগম ফাতেমা নজীব এর নির্দেশক্রমে এজহার ও নালিশী আর্জির ফটোকপি সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়।
বর্তমানে কুমিল্লার মাননীয় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের ফৌজদারী রিভিশন মামলা নং ১৯৭/১০ তাং ২৩ জুন ২০১০ আদেশ নামার ফটোকপি (যা বিজ্ঞ বিচারকের স্বাক্ষর বিহীন) জনৈক শাহ আলম খান পিতা মৃত আব্দুল মজিদ খান সাং অশোকতলা, থানা কোতয়ালী মডেল জিলা কুমিল্লা গত ২ ও ৩ জুলাই সন্ধ্যায় প্রকাশ্যে এলাকায় জনগনের সামনে প্রদর্শন পূর্বক সম্পত্তির মালিক না হওয়া সত্ত্বেও জোরপূর্বক এবং ক্ষমতাশীন দলের প্রকাশ্য মদদে অশোকতলাস্থ সাবেক ৬০০ দাগের জমিতে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে মাটি ভরাট ও সীমানা দেয়াল নির্মাণ করছে বিধায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ এড়াতে জনৈক আবুল কালাম আজাদ কোতয়ালী মডেল থানায় জিডি করলে (জিডি নং ১১৩ তাং ২/৭/১০ইং) ঘটনাস্থলে পুলিশ আসলে উক্ত শাহ আলম ও তার লোকজন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আদেশনামার ফটোকপি প্রদর্শন করে। পুলিশ উক্ত ফটোকপি দেখে তাদেরকে কাজ করতে নিষেধ না করে বরং কাজ চালিয়ে যেতে বলে। যদিও এরূপ ফটোকপি গ্রহণযোগ্য নয় এবং কিভাবে আদালতের আদেশ নামার ফটোকপি উক্ত শাহ আলম খান পেল জানতে চাইলে সে জানায় আদালতের পেশকার এর নিকট হতে গ্রহণ করা হয়েছে।

Check Also

দেবিদ্বারে অগ্নিকান্ডে ১কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ– কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামে রান্না ঘরের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরনে ১৫টি ...

Leave a Reply