কুমিল্লায় দিনভর প্রবল বর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত

কুমিল্লাওয়েব ডেস্ক:
দিনভর প্রবল বর্ষণে মঙ্গলবার (২৯জুন) কুমিল্লা শহরসহ জেলার বহু জায়গায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। শহরের অলি-গলি ছাপিয়ে মহাসড়কেও হাঁটু পানি জমে ঢেউ খেলে যায়। অচল হয়ে পড়ে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা। সৃষ্টি হয় স্থায়ী জলাবদ্ধতা। ড্রেন, ডাস্টবিনের ময়লা-আর্বজনা পানির সঙ্গে বৃষ্টির পানি মিশে একাকার হয়ে যায়। চারদিকে শুধু পানি আর পানি। রাস্তায় যানবাহন চলাচলে দেখা দেয় মারাত্বক সমস্যা, বিশেষ করে রাস্তায় হাটু পর্যন্ত পানি উঠে যাওয়ায় রিকসা, অটোরিক্সা চালাতে গিয়ে চালকদের পড়তে হয়েছে নানান বিরম্বনায়, দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে অফিসগামী, স্কুলগামী শিক্ষার্থী ও দিনমজুরসহ সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে। শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত জিলা স্কুল, ফয়জুন্নেসা, আওয়ার লেডি গার্লস হাই স্কুল, মর্ডান স্কুলে মোটামুটি শিক্ষাথীদের উপস্থিতি থাকলেও শহরের আনাচে-কানাচের অনেক স্কুল-কলেজের প্রবেশ পথে ও ভিতরে বৃষ্টির পানি জমে যাওয়ায় ওই সব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাথীদের উপস্থিতি ছিল খুবই কম।
সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত একটানা বর্ষণে শহরের মনোহরপুর, কান্দিরপাড়, টাউনহল, রাজগঞ্জ, বালুতুপা, নুরপুর, টিক্কাচর, গর্জনখোলা, হাউজিং, কাটাবিল, হযরতপাড়া, কাশারিপট্রি, চকবাজার, কাপড়িয়াপট্রি, ছাতিপট্রি, দেশওয়ালীপট্রি, ভিক্টোরিয়া কলেজ রোড, ডিগাম্বরীতলা,দণি চর্থা, ইপিজেড রোড, ধর্মপুর রোড, বাগিচাঁগাওসহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তা পানিতে তলিয়ে যায়।
মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত একটানা বৃষ্টি হওয়ার ফলে জনদুর্ভোগ হয়ে উঠে চরমে। বেলা ১১ টার দিকে শহরের অন্যতম ব্যস্ততম সড়ক কান্দিরপাড়, মনোহরপুর, লাকসামরোড, টমছমব্রীজ, শাসনগাছা, রাজগঞ্জ, চকবাজার এলাকার সড়কগুলো হাঁটু পানিতে ডুবে যায়। এসব সড়কে কিছু অটোরিকশাতে পানি ঢুকে বিকল হয়ে রাস্তায় বন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া এসব সড়ক এলাকায় প্রচণ্ড যানজটের সৃষ্টি হয়। বাড়ি, বাজার, অফিস, স্কুল-কলেজে আসা-যাওয়া করার সময় মানুষকে পোহাতে হয় চরম দুর্ভোগ।
অপরদিকে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার মাসুমুর রহমান মাসুদ চান্দিনা থেকে জানান, চান্দিনা
টানা দুই দিনের ভারি বর্ষণে কুমিল্লার চান্দিনায় জনদুর্ভোগ চরমে উঠেছে। প্রচন্ড বৃষ্টিতে উপজেলা সদরের প্রধান সড়কটি পানিতে নিমজ্জিত হয়ে যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। গত সোম ও মঙ্গলবার বৃষ্টিতে সড়কটিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় পড়ে থাকা উপজেলার কাঠেরপুল থেকে পালকি সিনেমা হল পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার রাস্তা এখন চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। চান্দিনা পশ্চিম বাজার এলাকায় বৃষ্টির পানি আজগর ম্যানসন সহ বিভিন্ন সপিং মলে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে আটকে পড়ে ব্যবসায়ীদের সীমাহীন দুর্ভোগের কারণ হয়ে পড়েছে।
সড়ক ও জনপথ বিভাগের উদাসিনতায় ওই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী। এদিকে চান্দিনা পৌরসভার পক্ষ থেকে ওই সড়কের দুই পার্শ্বে ড্রেনেজ ব্যবস্থা সম্প্রসারণ না করায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। বর্ষা মৌসুমে সামান্য বৃষ্টি হলে ভগ্ন অংশগুলো খানাখন্দে ভরে যায়। বৃষ্টি পানি আটকে থাকে। সড়কটির চান্দিনা থানা সংলগ্ন অংশ, পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, চান্দিনা মেডিকেল সেন্টার, চান্দিনা পূর্ব বাজার, ডাব বাজার চৌরাস্তা, খাদ্য গুদাম, কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ সহ বেশ কিছু অংশে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।
এদিকে সড়কটির দুপাশে পয়নিষ্কাশনের সু-ব্যবস্থা না থাকায় সমস্যাটি আরও ব্যাপক আকার ধারন করেছে। পয়নিষ্কাশন ব্যবস্থাটি সম্প্রসারণের দায়িত্ব চান্দিনা পৌরসভার হলেও পৌর কর্তপও অবহেলা করছে। মাষ্টার প্লেন জমা দেওয়া হয়েছে, প্রসেসিং চলছে এরকম অজুহাতে বছরের পর বছর ধরে গড়িমশি করছে পৌর কর্তৃপ। সড়কের বেহলা অবস্থা আর ড্রেইনেজ এর অব্যবস্থাপনা মিলে ব্যবসায়ী ও জনসাধারণ চরম দুর্ভোগে পড়েছে। পার্শ্ববর্তী দেবিদ্বার ও বরুড়ার দুটি সংযোগ সড়ক ওই সড়কে মিলিত হওয়ায় ওই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন তিন উপজেলার হাজার হাজার মানুষ আসা যাওয়া করে। এছাড়া চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়, থানার অফিসার ইন চার্জ এর কার্যালয়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ চারটি প্রাইভেট হাসপাতাল, সরকারি অফিস, পাঁচটি ব্যাংক, চান্দিনা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, চান্দিনা ডাক্তার ফিরোজা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চান্দিনা মহিলা ডিগ্রি কলেজ, চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ ডিগ্রি কলেজ, ছয়টি কিন্ডার গার্টেন, দশটিরও বেশি এনজিও এর কর্মকর্তা, কর্মচারী, ডাক্তার, রোগী, শিক, শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার মানুষ ওই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করে। চান্দিনা উপজেলার প্রধান ও ব্যস্ততম ওই সড়টির সংস্কার অত্যন্ত জরুরী। গত ২০০৯ সালে সড়কটি সর্বশেষ কার্পেটিং এর কাজ করা হয়।
উল্লেখ্য, ওই সড়কটি একসময় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের অংশ ছিল। বর্তমানে পুরাতন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক হিসেবে এটি পরিচিত।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply