অপ্রতিরোদ্ধ আর্জেন্টিনা : শিরোপার দৌড়ে আরো একধাপ এগিয়ে


জুন ২৮ (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)
মেক্সিকোকে ৩-১ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে আর্জেন্টিনা। শেষ আটের লড়াইয়ে জার্মানির মুখোমুখি হবে তারা। খেলার ২৫ মিনিটে প্রথম গোল করে আর্জেন্টিনাকে ১-০ গোলে এগিয়ে দেন কার্লোস তেভেজ। এর সাত মিনিট পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন গঞ্জালো হিগুয়েন। ৫১ মিনিটে ডান পায়ের তীব্র শটে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন তেভেজ।
মেক্সিকোর পক্ষে খেলার ৭১ মিনিটে একটি গোল শোধ করেন হ্যাভিয়ের হার্নান্ডেজ।
জোহানেসবার্গের সকার সিটি স্টেডিয়ামে খেলা শুরুর পাঁচ মিনিট পর্যন্ত কোনো দলই পরিকল্পিত আক্রমণ করতে পারেনি। দু’ দলই পরস্পরের শক্তি বুঝে নিতে বেশ খানিকটা সময় খরচ করে। এরপর প্রথম আক্রমণ আর্জেন্টিনার। সেই আক্রমণ থেকে গোলে অবশ্য শট নিতে পারেননি লায়োনেল মেসি।
এরপরেই মেক্সিকো দুটি আক্রমণ চালায় আর্জেন্টিনার সীমানায়। এ আক্রমণে মেক্সিকো এগিয়ে গেলে অবাক হওয়ার কিছু থাকত না। ৮ মিনিটের মাথায় মেক্সিকোর কার্লোস সালসিডোর শট আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক সার্জিও রোমেরোকে পরাস্ত করে বারে লেগে ফিরে আসে। পরের মিনিটেই আন্দ্রেস গুয়ারদাদোর শট আর্জেন্টিনার পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়।
টানা দু’টি আক্রমণের ঝটকা সামলে মেক্সিকোর সীমানায় হানা দেয় আর্জেন্টিনা। কার্লোস তেভেজ চমৎকার থ্রু পাস বাড়িয়েছিলেন। কিন্তু সেটি একটু দ্রুতগতির হওয়ায় ধরতে পারেননি গঞ্জালো হিগুয়েন। ১৩ মিনিটের সময় মেসি একক প্রচেষ্টায় ঢুকে পড়েছিলেন মেক্সিকোর রক্ষণভাগে। তবে তার শট ধরে নেন গোলরক্ষক অস্কার পেরেজ।
আর্জেন্টিনার হয়ে প্রথমার্ধে মাঝমাঠে ছিলেন না অভিজ্ঞ সেবাস্টিয়ান ভেরন। মেসি যথারীতি দুই স্ট্রাইকার তেভেজ এবং হিগুয়েনের পেছনে খেলেছেন। মাঝমাঠের দায়িত্বে ছিলেন অধিনায়ক মাসচেরানো, ডি মারিয়া এবং ম্যাক্সি রডরিগুয়েজ। কিন্তু প্রথমার্ধের বেশ কিছুক্ষণ খেলাটা ঠিক ধরতে পারেননি এই তিনজন। ফলে মাঝমাঠে একটু বেশি দখল ছিল মেক্সিকোরই।
এই সুযোগ নিয়েই অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে সমানতালেই খেলেছে মেক্সিকো। ছোট পাসে দ্রুত আক্রমণ করার চেষ্টা করেছে তারা। কিন্তু ক্রমেই নিজেদের ফিরে পেয়েছে দু’বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। বিশেষ করে মেসি এবং তেভেজের গতি ও ড্রিবলিং বিপদেই ফেলছিল মেক্সিকোর রক্ষণভাগকে।
এই যুগলের এমনই একটি আক্রমণ থেকে প্রথমার্ধের ২৫ মিনিটে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। তবে গোলটি করার সময় তেভেজ অফসাইডে ছিলেন বলে দাবি করে মেক্সিকোর খেলোয়াড়রা। কিন্তু রেফারি তার সিদ্ধান্তে অটল থাকেন। মেসি গোলমুখে যে শট নিয়েছিলেন তাতে কেবল মাথা ছুঁইয়ে গোল করে যান তেভেজ।
তবে তার সাত মিনিট পর আর্জেন্টিনা যে দ্বিতীয় গোলটি করে তা নিয়ে কোনোই বিতর্ক ছিল না। তবে গোলটির জন্য দায়ী ছিলেন মেক্সিকোর রক্ষণভাগের খেলোয়াড় রিকার্ডো ওসোরিও। তার বেতাল ব্যাকপাস পেয়ে যান হিগুয়েন। সেটি থেকে গোল করতে কোনো অসুবিধাই হয়নি রিয়াল মাদ্রিদ স্ট্রাইকারের। চার গোল করে হিগুয়েনই এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপে গোলদাতাদের তালিকায় সবার ওপরে। বিরতি পর্যন্ত দুই গোলে এগিয়েছিল আর্জেন্টিনা।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে খানিকক্ষণ আর্জেন্টিনার ওপর চড়াও হয়ে খেলার চেষ্টা করে মেক্সিকো। কিন্তু লাভ হয়নি কিছুই। বরং ৫১ মিনিটে আরো একটি গোল খায় তারা। এ গোলটিও করেন তেভেজ। প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে ডান পায়ে নেয়া তার গোলার মতো শটটি ঠেকানোর কোনো উপায় জানা ছিল না মেক্সিকান গোলরক্ষক পেরেজের। বিশ্বকাপে এটি তেভেজের তৃতীয় গোল, ৬২ মিনিটে একটি গোল ফিরিয়ে দেয়ার সুযোগ এসেছিল মেক্সিকোর সামনে। কিন্তু পাবলো বারেরার ক্রস থেকে হ্যাভিয়ের হার্নান্ডেজের হেড পোস্টের ওপর দিয়ে চলে যায়। তবে ৭১ মিনিটে গোল করতে ভুল করেননি হার্নান্ডেজ। বক্সের ভেতর থেকে বাঁ পায়ের তীব্র শটে বল জড়িয়ে দেন আর্জেন্টিনার জালে।

Check Also

কুমিল্লার বিপক্ষে ১৫৩ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে রাজশাহী

ক্রীড়া প্রতিবেদক :– বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটে রাজশাহী কিংসকে ১৫৩ রানের টার্গেট দিলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ...