বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচনে দেবিদ্বারে উপজেলা কমান্ডে সামাদ-মনিরুজ্জামান ও মুরাদনগরে ফিরোজ- রশিদ প্যানেল বিজয়ী

ন্টাফ রিপোর্টার :
শনিবার অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচনে দেবিদ্বার উপজেলা কমান্ড নায়েক মো: আ: সামাদ- মো: মনিরুজ্জামান যুদ্ধাহত (হাতী মার্কা) প্যানেল বিজয়ী হয়।
জানা যায়, দেবিদ্বারে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচনে উপজেলা কমান্ডার পদে নায়েক মো: আ: সামাদ (হাতী মার্কা) ৩১৮ ভোট পেয়ে বিজয় লাভ করেন, তার নিকটতম প্রতিদন্দী ছিলেন মো: রফিকুল ইসলাম (কমলা মার্কা) প্রাপ্ত ভোট ২৫১। উপজেলা ডিপুটি কমান্ডার পদে মো: মনিরুজ্জামান যুদ্ধাহত (হাতী মার্কা) ৩১২ ভোট পেয়ে বিজয় লাভ করেন, তার নিকটতম প্রতিদন্দী ছিলেন মো: গাজী আ: মালেক সরকার (কমলা মার্কা) প্রাপ্ত ভোট ২৩৫। সহকারী কমান্ডার (সাংগঠনিক) পদে মো: ফরিদ উদ্দিন মোল্লা (হাতী মার্কা) ২৯৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন, তার নিকটতম প্রতিদন্দী ছিলেন মো: বশির আহম্মদ (কমলা মার্কা) প্রাপ্ত ভোট ২৫৮। অন্যান্য পদে বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন- সহকারী কমান্ডার (পূর্ণবাসন, সমাজ কল্যাণ, শহীদ ও যুদ্ধাহত) পদে মো: নজরুল ইসলাম, সহকারী কমান্ডার (তথ্য ও প্রচার) পদে মো: আবুল হাসেম, সহকারী কমান্ডার (অর্থ) পদে মো: জাকারিয়া, সহকারী কমান্ডার (দপ্তর ও পাঠাগার) পদে রাখাল চন্দ পাল, সহকারী কমান্ডার (ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক) পদে হাবিলদার আবুল হাশেম, কার্যকরী সদস্য পদে মো: আ: রাজ্জাক সরকার, মো: আবু হানিফ মুন্সী, মো: রফিকুল ইসলাম (সকলের মার্কা হাতী) বিজয় লাভ করেছেন। অপরদিকে মুরাদনগ আমাদের ন্টাফ রিপোর্টার মো. হাবিবুর রহমানজানান, সারা দেশের মতো কুমিলার মুরাদনগরেও উৎসবমূখর পরিবেশে দেশ ও জনগনের অতন্দ্র প্রহরী মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড কাউন্সিল নির্বাচন শনিবার সুষ্ঠু ওশান্তিপূর্ন ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। মুরাদনগর ডি, আর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৯৮৮ জন ভোটারের মধ্যে ৬০৭ জন ভোটার ফিরোজ-রশীদ (কলস) প্যানেলের ১১জন প্রার্থীকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেন। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভাবে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত নির্বাচনে ফিরোজ-রশীদ (কলস) প্যানেল ছাড়াও আক্কাস-ফেরদৌস (হাতি) প্যানেল এবং হারুন-নুরু (ঘোড়া) প্যানেলের ৩৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করেছিলেন। কমান্ডার পদে ফিরোজ-রশীদ (কলস) প্যানেলের এডভোকেট সামছুল হক ফিরোজ ২৮৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি হারুন-নুরু (ঘোড়া) প্যানেলের হারুনুর রশীদ ২৬৫ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় ও আক্কাস-ফেরদৌস (হাতি) প্যানেলের আবু আক্কাস ১৭২ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন। এতে প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা মাধ্যমিক শিা কর্মকর্তা সফিউল আলম তালুকদার।
নির্বাচন চলাকালে মুরাদনগর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচন ২০১০ এর রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম শওকত ইকবাল শাহীন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আশরাফুল আলম খান, উপজেলা শিা কর্মকর্তা শামীম আহমেদ, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম সরকারসহ প্রশাসনের প্রায় সকল কর্মকর্তাই পরিদর্শনের মাধ্যমে নির্বাচন পর্যবেন করেন। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্নভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করার জন্য উপজেলা প্রশাসনের প থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছিল।
ফিরোজ-রশীদ প্যানেলের কলস প্রতীকের নব-নির্বাচিত প্রার্থীরা হলেন, কমান্ডার এডভোকেট সামছুল হক ফিরোজ, ডেপুটি কমান্ডার আব্দুর রশীদ, সহকারী কমান্ডার (সাংগঠনিক) সিরাজুল ইসলাম, সহকারী কমান্ডার (পূনর্বাসন-সমাজকল্যাণ-শহীদ ও যুদ্ধাহত) আব্দুস ছামাদ, সহকারী কমান্ডার (তথ্য ও প্রচার) লুৎফুর রহমান মুন্সী, সহকারী কমান্ডার (অর্থ) মজিবুর রহমান, সহকারী কমান্ডার (দপ্তর ও পাঠাগার) আব্দুর রউফ, সহকারী কমান্ডার (ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক) হাবিলদার আফিক মিয়া, কার্যকরী সদস্য কবির আহাম্মদ, বজলুর রহমান ও আব্দুল মালেক।
নব-নির্বাচিত কমান্ডার ফিরোজ-রশীদ (কলস) প্যানেলের এডভোকেট সামছুল হক ফিরোজ তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, এ বিজয় আমার নয়, মুরাদনগর উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধাদের। তিনি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্নভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করায় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...