কুমিল্লার দেবিদ্বারে প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তার বিরোদ্ধে অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগঃ মাসে অফিসে আসে ১ দিন

এম.এ হোসেনঃ
সীমাহীন অনিয়ম ও দূর্নীতিতে আকন্ঠ নিমর্জ্জিত কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার প্রাণি সম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র। গত শনিবার (৮মে) সকালে বার্ড ফু প্রতিরোধের লক্ষে লিড খামারীদের কর্মশালায় ওয়ার্ল্ড ব্যাংক ও অঐওঞঋ অর্থায়নে এভিয়ান ইনফুয়েঞ্জা প্রিপেয়ার্ডনেস এন্ড রেসপন্স প্রজেক্ট প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তর ঢাকা কেন্দ্রের আয়োজনে উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ অশিত চন্দ্র মজুমদারের সভাপতিত্বে মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় ৬০ জন খামারীকে কাগজে- কলমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। কিন্তু ওই কর্মশালায় প্রকৃত খামারীদের প্রশিক্ষণ না দিয়ে অফিসের কর্মচারী কর্মকর্তাদের স্ত্রী, শালা, ছেলেমেয়ে, ভাইবোনও বিভিন্ন আত্বতীয় স্বজনের নাম দিয়ে কর্মশালার জন প্রতি ৩৪০/- হারে যাতায়ত ভাতা কাগজে- কলমে ভূয়া ভাইচার দেখিয়ে উক্ত টাকা তাদের মধ্যে ভাগ ভাটোয়ারা করে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে এবং পূর্বেও এধরনের অভিযোগ রয়েছে, যা কাগজে- কলমে সীমাবদ্ধ বাস্তবে তার কোন মিল নেই। ভিরাল্লা গ্রামের খামার মালিক মোঃ আলী আহম্মদ জানান, আমি খবর পেয়ে অফিসে গিয়ে কর্মশালায় উপস্থিত হলে অফিসের কর্মকর্তা বলেন নামের তালিকা আগে তৈরী হয়ে গেছে এখন আর কাউকে নতুন করে নেওয়া যাবেনা। অথচ সে প্রায় দশ বছর যাবত খামার পরিচালনা করে আসছে। উপজেলা তালতলা গ্রামের খামারের মালিক সুমন ও কুরুইন গ্রামের এনামূল জানান, আমরা উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসের কোন সেবা পাচ্ছিনা ও কোন প্রশিক্ষনের জন্য আমদেরকে ডাকা হয় নাই। বিভিন্ন সমস্যায় তাদের কাছে গেলে কোন ঔষুধতো দূরের কথা, ভাল পরামর্শের জন্য প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা অফিস চলাকালীন সময়ে পাওয়া যায় না। সূত্র মতে জানা যায়, অফিসের প্রধান কর্মকর্তা মাসে বেতন নিতে অফিসে আসেন মাত্র ১ দিন। প্রতিদিন উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে গরু বাছুরের নানা সমস্যা নিয়ে আসা কৃষকরা প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা না পেয়ে সরনাপন্ন হচ্ছে স্থানীয় হাতুরে ডাক্তারের নিকট। তাই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে দিন দিন প্রাণি সম্পদ বিলুপ্তির প্রায় হতে যাচ্ছে। ফলে দেশের প্রাণি সম্পদ উন্নয়নে ব্যাহত হচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ অশিত চন্দ্র মজুমদারকে হাসপাতালে না পেয়ে তার মোবাইল নাম্বার ০১৭৩১-৪১০০৬৪ চেষ্ঠা করে বন্ধ থাকায় কোন যোগাযোগ করা যায়নি। ভেটেরিনারী সার্জন আঃ হাকিম লিটন জানান, আমার ঢাকায় প্রশিক্ষন চলাকালীন সময়ে ওই প্রশিক্ষনের তালিকা তৈরী হয়েছে। তারা প্রকৃত খামারী কিনা তা আমি জানি না।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...