কালো ও সাদা টাকার তফাৎ জানেন না হানিফ : খালেদা জিয়ার আয়কর আইনজীবী

n16161075690_1746
এস জে উজ্জ্বল :
সোমবার দুপুরে দলের পক্ষ থেকে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে খালেদা জিয়ার আয়কর আইনজীবী আহমেদ আজম খান বলেন, “সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া তার বিভিন্ন ব্যাংকে গচ্ছিত অপ্রদর্শিত অর্থের ওপর কর দিয়েছেন। ওই অর্থ কোনোভাবেই কালো টাকা নয়।”আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কালো ও সাদা টাকার তফাৎ না জানায় বিএনপি চেয়ারপার্সনের বিরুদ্ধে টাকা সাদা করার অভিযোগ এনেছেন বলে মন্তব্য করেছেন তিনি
রোববার আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কালো টাকা সাদা করতে ২০০২-০৩ অর্থ বছরের জন্য ৩০ লাখ ৩১ হাজার ৪৪ টাকা, ২০০৩-০৪ অর্থ বছরের জন্য ১ লাখ ১৭ হাজার ১৬৮ টাকা, ২০০৪-০৫ অর্থ বছরের জন্য ৮২ হাজার ৭৯০ টাকা, ২০০৫-০৬ অর্থ বছরের জন্য ৮৩ হাজার ৩৫৬ টাকা এবং ২০০৬-০৭ অর্থ বছরের ৭২ হাজার টাকা কর ও জরিমানা দিয়েছেন।
এর জবাবে খালেদার আইনজীবী ও বিএনপির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আজম খান সোমবার বলেন, “হানিফ সাহেব কালো টাকা ও অপ্রদর্শিত অর্থের মধ্যে তফাৎ জানেন না বলে এরকম অভিযোগ করেছেন।” তিনি বলেন, “কালো টাকা মানে উৎসবিহীন অর্থ। অপ্রদর্শিত অর্থ মানে অঘোষিত টাকা। এই দুটির মধ্যে বিস্তর ফারাক রয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতারা অযথা এ নিয়ে মিথ্যা অভিযোগ তুলে পানি ঘোলা করছেন।”
আজম জানান, এসআরও-৯৮ এর আওতায় ২০০২-০৩ অর্থবছর থেকে ২০০৬-২০০৭ পর্যন্ত সাবেক প্রধানমন্ত্রী তার অপ্রদর্শিত অর্থের ওপর কর দিয়েছেন। এই অপ্রদর্শিত অর্থের মধ্যে আছে- প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের পেনশন ও গ্রাচুয়িটি বাবদ সরকার থেকে পাওয়া ১০ লাখ টাকা। এছাড়া এফডিআর হিসেবে বিভিন্ন ব্যাংকে গচ্ছিত টাকা যা গুলশানে সরকারি বরাদ্দের বাড়িভাড়া থেকে পাওয়া।
এক প্রশ্নের জবাবে আজম বলেন, ”ব্যাংকে অর্থ থাকলে তা থেকে বছর শেষে ১০ ভাগ হারে কর কেটে নেওয়া হয়। কিন্তু ওই অর্থ ঘোষণা করে আলাদাভাবে কর দেওয়ার বিধানটি নেত্রী জানতেন না বলেই তা দীর্ঘসময় অপ্রদর্শিত অর্থ হিসেবে গচ্ছিত ছিলো। একে কোনোভাবেই কালো টাকা বলা যাবে না। কারণ কালো টাকার কোনো উৎস থাকে না। আওয়ামী লীগের নেতারা এ বিষয়টি জানেন না বলে এমন অভিযোগ তুলছেন।”
রাজস্ব বোর্ড থেকে খালেদা জিয়ার আয়করের হিসাব হানিফ সাহেব প্রকাশ্যে এনে সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন বলেও অভিযোগ করেন আজম।
নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ ব্রিফিং হয়। এতে অন্যদের মধ্যে স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার, সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, দপ্তর সম্পাদক রিজভী আহমেদ, সহ দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, আসাদুল করিম শাহিন উপস্থিত ছিলেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...