প্রতিবছর শতভাগ পাশ করলেও মুরাদনগরের ভবানীপুর মাদ্রাসা ৯ বছরেও এমপিওভুক্ত হয়নি

মো. হাবিবুর রহমান, মুরাদনগর থেকে :
কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর দাখিল মাদ্রাসাটি ২০০১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে ২০০৪ সাল থেকে শিক্ষার্থীরা দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সুনামের সাথে প্রতিবছর শতভাগ ফলাফল অর্জন করে আসছে। পর পর ৬ বার ফলাফলের গৌরবময় ভূমিকা পালন করে আশ-পাশের মাদ্রাসা-স্কুলগুলোকে চমক সৃষ্টি করলেও মাদ্রাসাটি আজও এমপিওভূক্ত হচ্ছে না। শিক্ষকদের কেউ মসজিদের ইমাম, কেউ মুয়াজ্জিন, আবার কেউ মক্তব চালিয়ে, অনেকে অন্যের বাড়ীতে লজিং থেকে কোন রকমে মানবেতর জীবন যাপন করছে, বিষয়টি যেন দেখার কেউ নেই। এমপিওভূক্ত না হওয়ায় এ মাদ্রাসা থেকে অনেক শিক্ষক অন্যত্র চলে গেছে, আরো অনেকে যাবার চেষ্টা করছে। এলাকাবাসীর প্রশ্ন, শেষ পর্যন্ত কি সুনাম অর্জনকারী এ মাদ্রাসাটি বন্ধ হয়ে যাবে?
ফলাফলের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে আনন্দের বন্যা থাকলেও মাাদ্রাসা শিক্ষকদের এমপিওভূক্তির কি হবে-এ নিয়ে সকলে চিন্তিত। সকলের চোখ যেন হতাশার ছাপ, মলীন ও উদ্বেগ ভরা। গত ৬ বছর যাবত এ ধরনের ফলাফল অর্জন করলেও উক্ত মাদ্রাসাটি সরকার তথা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কোন নজরে আসছে না। ফলে এমপিওভূক্ত না হওয়ায় মাদ্রাসাটি যে কোন মুহুর্তে বন্ধ হয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।
মাদ্রাসার সুপার মাওলানা আবু মুছা কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, আল্লাহর অশেষ রহমতে অনেক শ্রম ও মেধা, খাটিয়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছি। বহু কষ্ট করে ২০০৩ সালে অনুমতি ও ২০০৫ সালে একাডেমিক স্বীকৃতি পেয়েছি। এ ব্যাপারে ঐ এলাকার শিক্ষানুরাগী ও মোচাগড়া গ্রামের ছিদ্দিকুর রহমান মাষ্টার জানান, এ মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মে দেশ ও জাতির আথর্-সামাজিক উন্নতির লক্ষ্যে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। তাই জরুরী ভিত্তিতে আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে সুপরিচিত উক্ত মাদ্রাসাটিকে এমপিওভূক্ত করার জন্য তিনি মাননীয় প্রধান মন্ত্রী, শিক্ষা মন্ত্রী ও মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং সচিবসহ সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...