অতি দরিদ্র ৪০ দিনের কর্মসূচীর আওতায় মাটি কাঁটার জের তিতাসে দুই গ্রামের মধ্যে সংর্ঘষ॥টেটাবিদ্ধ ৮

নাজমুল করিম ফারুক তিতাস থেকে :
গতকাল বুধবার সকাল ১০টায় কুমিল্লার তিতাস উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের দাসকান্দি-আলীনগর রাস্তায় ৪০ দিনের অতি দরিদ্র কর্মসূচী প্রকল্পের রাস্তা আওতায় মাটি কাটা নিয়ে রতনপুর, কদমতলী ও আলীনগর গ্রামবাসীর মধ্যে তুমুল সংর্ঘষ বাঁধে। এতে আলীনগর গ্রামের মহসীন চেয়ারম্যানের ছেলে মহিন, রফিক মিয়ার ছেলে আশোক, কদমতলী গ্রামের নুুরে আলম, হামজা, রতনপুর গ্রামের রাজু মিয়ার স্ত্রী হোসনেয়ারাসহ ৮ জন টেটাবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়। পরে থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।
অতি দরিদ্র কর্মসূচীর আওতায় দাসকান্দি আলীনগর রাস্তার মেরামতের তদারকি সদস্য আওয়ামীলীগ নেতা রাজা মিয়া জানান, উল্লেখিত সড়কে ৪০ দিনের আওতায় মাটি কাটার কাজ চলছে। এক পর্যায়ে শ্রমিকগণ মাটি কাটার জন্য রতনপুর গ্রামের রাজু মিয়ার রাস্তা সংলগ্ন জমিতে মাটি কাটতে গেলে তাহার স্ত্রী হোসনেয়ারা ও ছেলে বাঁধা দেয়। এতে শ্রমিকদের সাথে বাকবিতণ্ডের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে তারা মাটি কাটার স্থান ত্যাগ করে রতনপুর গ্রামের চলে যায় এবং রতনপুর গ্রামের আবদু মিয়ার ছেলে হানিফা ও কদমতলী গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা পারুল মাইকিং করে রতনপুর ও কদমতলী গ্রামের লোকজনকে একত্রিত হওয়ার ঘোষণা দেয়। ঘোষণার কিছুক্ষণ পর রতনপুর ও কদমতলী গ্রামের শত শত লোক দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে আলীনগর গ্রামে হামলা চালাতে এগিয়ে আসে এতে আলীনগর গ্রামের লোকজন বাঁধা দিলে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়।
এ ব্যাপারে মোবাইলে আওয়ামীলীগ নেতা পারুল এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, রতনপুর গ্রামের হোসনেয়ারা তাহার জমিত থেকে কম পরিমাণ মাটি কাটতে বলতে আলীনগর গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা রাজা মিয়াসহ মাটি কাটার শ্রমিকগণ তাকে মারধর করে। মারধরের ঘটনাকে স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করার জন্য আমরা আলীনগর গেলে রাজা মিয়াসহ আরো অনেকে আমাদের উপর হামলা চালায়। তবে রতনপুর গ্রামের হানিফার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা ও অতি দরিদ্র কর্মসূচীর তদারকি সদস্য মোহাম্মদ আলাউদ্দিন মাষ্টার বলেন, মাটি কাটাকে কেন্দ্র করেই দু-গ্র“পের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি হয় এবং কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষে বাঁধে। এতে মাটি কাটার সাময়িক অসুবিধা হলেও পরবর্তীতে মাটি কাটার কাজ চলে এবং তা যথাযথ নিয়মে চলবে। তবে দু’গ্র“পের মধ্যে বিরাজমান বিরোধের সুষ্ঠু সমাধান স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করা হবে।
উল্লেখ্য, গত তিন মাসে তিতাসে তিনটি হত্যাকাণ্ডসহ ডাকাতি, ছিনতাই, রাহজানি, দাঙ্গা-হাঙ্গামা প্রতিনিয়ত সংঘটিত হওয়ায় দিন দিন আইন শৃঙ্খলার চরম অবনতি ঘটায় স্থানীয় রাজনীতিক, সাংবাদিক, শিক্ষক, ব্যবসায়ীসহ নানা পেশার মানুষ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। তবে উক্ত ঘটনা পরিদর্শনকারী এএসআই ফরিদকে মোবাইল ফোন করলে সে ফোন রিসিভ করেনি।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...