কুমিল্লার দেবিদ্বারে আ’লীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ বর্ধিত সভা পন্ড : ব্যাপক ভাংচুর আহত ১৫

শনিবার বিকেলে কুমিল্লার দেবিদ্বারে আ’লীগের বর্ধিত সভায় দু’গ্রপের  সংঘর্ষে সভাস্থলে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়
শনিবার বিকেলে কুমিল্লার দেবিদ্বারে আ’লীগের বর্ধিত সভায় দু’গ্রপের সংঘর্ষে সভাস্থলে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়
স্টাফ রিপোর্টার (দেবিদ্বার) :
জেলার দেবিদ্বার উপজেলায় আ’লীগের বর্ধিত সভায় দু’নেতাকে আমন্ত্রন না জানানো কে কেন্দ্র করে ফখরুল মুন্সী বনাম হাজী জয়নুল গ্রুপের বিবদমান দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ও ব্যাপক ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এতে শনিবার বিকেলে উপজেলা সদরের উৎসব কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত ওই বর্ধিত সভা পন্ড হয়ে যায়। আহত হয় দলের অন্তত ১৫ নেতাকর্মী,লাঞ্চিত হয় আরো অনেকে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদশী নেতাকর্মীরা জানান শনিবার বিকেলে ৪টায় উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জয়নুল আবেদীনের সভাপতিত্বে উপজেলা আ’লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এবিএম গোলাম মোস্তফা,আ’লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মন্ডলীর সাবেক সদস্য এফএম ফখরুল ইসলাম মুন্সী, শিল্পপতি রোশন আলী মাষ্টার, উপজেলা চেয়ারম্যান রাজী মো‏হাম্মদ ফখরুল মুন্সী, ভাইস চেয়ারম্যান একেএম শফিকুল আলম কামালসহ দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভা চলাকালীন সময়ে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল মান্নান তার বক্তব্যে ‘ওই বর্ধিত সভায় কেন ফখরুল মুন্সী ও রোশন আলী মাষ্টার কে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়ে আমন্ত্রন জানানো হলো না’ উপস্থিত সাংসদ ও আ’লীগ সভাপতির প্রতি এমনই ক্ষোভের প্রশ্ন ছুড়ে দিলে সভাস্থলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় উভয় গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ ও হাতাহাতি। অবস্থা বেগতিক দেখে অনেকটা তোপের মুখে পুলিশ প্রহরায় সাংসদ গোলাম মোস্তফা সভাস্থল ত্যাগ করলেও এ সময় দলের অনেক শীর্ষ নেতা লাঞ্ছিত হয়, ছিড়ে যায় অনেকের জামা কাপড়। আহত হয় উভয় গ্রুপের অন্তত ১৫ নেতাকর্মী। এতে মারাত্বক আহত আ’লীগ নেতা আবদুস সালাম ভূইয়া কে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের ব্যাপারে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়াগেছে। আ’লীগ নেতা ফখরুল মুন্সী জানান গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমার ছেলে রাজী মোহাম্মদ চেয়ারম্যান পদে বিজয় লাভ করার পর থেকেই হাজী জয়নুল গ্রুপ দলের কোন সভায় আমাকে এবং উপজেলা চেয়ারম্যানকে আমন্ত্রন জানায়নি, শনিবার দলের বর্ধিত সভায় নেতাকর্মীরা এর প্রতিবাদ করার কারনেই সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। তবে হাজী জয়নাল জানান ‘ভুল বশত হয়তো ফখরুল মুন্সীকে আমন্ত্রন জানানো হয়নি, তার সাথে দলের কিংবা আমার ব্যক্তিগত কোন বিরোধ নেই,পরিকল্পিত উপায়েই সভায় অরাজকতা সৃষ্টি করা হয়।’ এদিকে ওই সংঘর্ষের ঘটনার পর জয়নুল গ্রুপ উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

Check Also

দাউদকান্দিতে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

হোসাইন মোহাম্মদ দিদার :কুমিল্লার দাউদকান্দিতে শান্তা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। ...