চান্দিনার বেদে পল্লী আবারও অশান্ত: গ্রেপ্তার আতঙ্ক মিথ্যা ধর্ষণ মামলায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর চেষ্টা

মাসুমুর রহমান মাসুদ, স্টাফ রিপোর্টার :
আবারও অশান্ত হয়েপড়েছে চান্দিনা’র বেদে পল্লী। এবার প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে মিথ্যা ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়েছে হবিগঞ্জের বাহুবল থানায়। মামলায় বেদে পল্লী’র আস্কর আলীর ছেলে শাহাব উদ্দিন (২৩), সুটকেস আলীর ছেলে সুজন মিয়া ওরফে সোজা (৪৫), কুটু মিয়ার ছেলে আলেক আলী (২০) সহ অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামী করা হয়েছে। এনিয়ে তিনটি মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। অন্য দুটি মামলার মধ্যে একটি চান্দিনা থানায় আরেকটি কুমিল্লা বিজ্ঞ চিপ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দায়ের করা হয়। এদিকে মামলা জর্জরিত বেদেরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে বাদি পক্ষের জহির, সুমন ওরফে সুফিয়ান, আবুল কালাম, কামাল, সালাম, সেলিম, মামুন, আজিম, ইকবাল, আবাদ, খোকন প্রকৃতপক্ষে দুস্কৃতকারী। স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা বেদে পল্লীর সমস্যা নিরসনে চেষ্টা করলেও ওই দুস্কৃতকারীরা তা মানছে না।
ধর্ষণ মামলার বিবরণে বলা হয়, দেবিদ্বার উপজেলার ডাক বাংলা রোডের আব্দুল গফুর এর মেয়ে মনিকা বেগমকে গত ৩ জানুয়ারী আসামীরা জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে। মামলায় ঘটনাস্থল দেখানো হয়েছে হবিগঞ্জের বাহুবল থানার জয়পুর গ্রামে। কিন্তু সরেজমিনে চান্দিনা বেদে পল্লীর বসবাসকারীদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, প্রধান আসামী শাহাব উদ্দিন ওই দিন খেলা দেখতে ঢাকার মিরপুর স্টেডিয়ামে অবস্থান করছিলেন। অপর দুই আসামী অন্য মামলায় জামিন প্রার্থনা করতে ঢাকায় হাইকোর্টে অবস্থান করছিলেন।
মামলার আসামীরা অভিযোগ করেন, বাদি পক্ষ দীর্ঘদিন ধরে তাদেরকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছে। এর আগে গত ১৫ নভেম্বর চান্দিনা থানায় জুয়েল, সোহেল, আশকর মিয়া, মোজাম মিয়া, শাহ জামাল, শাহাবুদ্দিন, রেজাই মিয়াকে আসামী করে একটি মামলা দয়ের করা হয়। মামলার বিবরণে আসামীদের বিরুদ্ধে লুটপাট এর মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়।
এ ব্যাপারে চান্দিনা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ নুরুল আফসার ভূইয়া জানান, সমাধানের চেষ্টা করা হলেও একটি পক্ষ তা মানছে না। ধর্ষণ মামলা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন ওই মামলাটি সম্পর্কে তদন্ত করতে বাহুবল থানার একটি পুলিশ টিম এসেছিল।
এ ব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জানান, পরপর তিনটি মামলা দায়ের করে এখানকার সাধারণ বেদেদের হয়রানি ও আর্থিকভাবে ক্ষতির মুখে ফেলে দেওয়া হয়েছে। মামলা তিনটিতে যাদের আসামী করা হয়েছে তারা আমাদের কথামত সমাধানের পক্ষে রয়েছে। কিন্তু বাদী পক্ষ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কয়েকবার অপমান করেছে। তারা পকৃতপক্ষে দুস্কতকারী।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...