ফিরে দেখা ২০০৯ : তিতাসে হত্যা, ছিনতাই, ডাকাতি ও পারমিটহীন ট্রলি সিএনজি, প্রকাশ্যে জুয়া ও মাদকের বিস্তার

pic 3
নাজমুল করিম ফারুক (তিতাস) থেকে :
তিতাস উপজেলার দিন যতই অতিবাহিত হচ্ছে ততই বহু ঘটনার জন্ম নিচ্ছে। যার ফলে এক এক করে হত্যা, ছিনতাই, ডাকাতি ও মামলার মাধ্যমে ফাইলের উপর ফাইল জমা হচ্ছে। বিগত বছরের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় হত্যা, ছিনতাই, ডাকাতি ও মামলার ছড়াছড়ি ছিল তিতাস থানা জুড়ে।
অনুসন্ধানে দেখা যায়, গত বছর ২০০৯ সালে তিনজন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিয়াজ মোহাম্মদ, নজরুল ইসলাম ও আবুল ফয়সল এর পদচারণায় মুখরিত হয়েছে তিতাস থানা। যা বাংলাদেশের যে কোন থানার চিত্র থেকে ব্যাতিক্রম। যার ফলে আইন শৃঙ্খলার উপর থেকে তিতাসবাসী আস্থা হারিয়ে ফেলে। একের পর এক ঘটে হত্যা, ছিনতাই, ডাকাতির মতো ঘটনা। এগুলোর মধ্যে পরিকল্পিত হত্যাকান্ড রয়েছে। তবে বেশিরভাগই অপমৃত্যু, আত্মহত্যা ও গাড়ি দুর্ঘটনাজনিত। অজ্ঞাতনামা লাশতো রয়েছেই।
ঘটনা প্রবাহ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, গত ১২ এপ্রিল নারান্দিয়া ইউনিয়নের বালুয়াকান্দি গ্রামে ৪ মাসের গর্ভবতী গৃহবধু রোজিনা আক্তার (২৬) খুন হয়। ১৯ এপ্রিল ভিটিকান্দি ইউনিয়নের দাসকান্দিতে ডাকাতি করার প্রস্তুতিকালে জনতা পুলিশ ৬ ডাকাতকে আটক করে। ২৮ এপ্রিল ভোর ৫টায় গৌরীপুর-হোমনা সড়কে কড়িকান্দি গ্রামের আবদুল মজিদের বসতঘরে ট্রাক ঢুকে একজন নিহত ও তিন জন গুরুতর আহত হয়। গত ২৬ জুন দিবাগত রাত ১:৪০ মিনিটে গৌরিপুর-হোমনা সড়কের দড়িকান্দি ব্রীজের আনুমানিক ৩০০ গজ উত্তরে রাস্তার উপর এক অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির লাশ পড়ে থাকতে দেখে তিতাস থানা পুলিশ তা উদ্ধার করে।
pic 4
গত ২৯ জুন তারিখে হোমনা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্র তিতাস উপজেলার চর রাজাপুর গ্রামের জাকির হোসেনের পুত্র আল-আমিন বাড়ি ফেরার পথে উত্তর আকালিয়ায় সিএনজি (সিলেট-থ- ৩৫৯৮) দুর্ঘটনায় নিহত হয়। গত ২ জুলাই কড়িকান্দি বাজারের উত্তর পার্শ্বে হোমনা-গৌরীপুর সড়কের পূর্ব পার্শ্বের ডোবায় ভাসমান অবস্থায় কড়িকান্দি গ্রামের ইঞ্জিল মোল্লার পুত্র ইব্রাহিম (১৪) এর লাশ পাওয়া যায়। ৪ দিন আগে সে নিখোঁজ হয়। ১১ জুলাই একটি খেলাকে কেন্দ্র করে ১৪৪ জারি হয়।
১১ অক্টোবর হোলসিম সিমেন্টের ডিলার রাহাত ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের বিক্রয় প্রতিনিধি হান্নান মিয়া উপজেলার বাতাকান্দি বাজারের সিমেন্ট ব্যবসায়ী খেলু মিয়ার নিকট থেকে পাওনা বাবদ সাড়ে তিন লক্ষ টাকা নিয়ে গৌরীপুর আসার পথে একই স্থানে বিক্রয় প্রতিনিধি হান্নানের সিএনজি গতিরোধ করে এবং ছিনতাইকারী তার টাকা ছিনতাই করে পার্শ্ববর্তী গোপালপুর সড়কে সিএনজি (কুমিল্লা-থ-১১-৪৯২০) দিয়ে পালিয়ে যায়। ১৮ অক্টোবর সকাল ৭টায় পুলিশ দড়িকান্দি ব্রীজের ৪০০ গজ উত্তরে গৌরীপুর-হোমনা সড়কের পশ্চিম পার্শ্বের জলাশয়ে ভাসমান অবস্থায় জ্যাকির লাশ উদ্ধার করে। ২২ অক্টোবর উলুকান্দি গ্রামের হাজী আবদুল মান্নানের বাড়িতে দিনে দুপুরে এক ডাকাতি সংঘটিত হয়।
pic 1
২৩ নভেম্বর সাতানী ইউনিয়নের মঙ্গলকান্দি গ্রামের আতংক হত্যা মামলার জামিনপ্রাপ্ত আসামী রাশিদা বেগম (৩৫) নিজ বাড়ীর পার্শ্বে নৃশংসভাবে খুন হন।
প্রকাশ্যে অপ্রকাশ্যে তিতাসের বিভিন্ন স্থানে জুয়া চললেও স্থানীয় প্রশাসন ও সিভিল সমাজ থাকে নিরব। তবে মাঝে মাঝে হানা দিয়ে পুলিশ প্রশাসন কয়েকজনকে ধরে এনে চালান দিলেও আসামীরা জামিনে এসে পূর্বের পথ অবলম্বন করে। গত ১০ ডিসেম্বর খানেবাড়ী গোবিন্দপুর জুয়া বোর্ড থেকে ১ হাজার ৮ শত চল্লিশ টাকাসহ মানিকনগর গ্রামের হাজিল মিয়ার পুত্র আলামিন (২০), ইদ্রিস মিয়ার পুত্র বাবুল মিয়া (১৮), ইদ্রিস মিয়ার আরেক পুত্র শাহ আলম (২৭), মতিন মিয়ার পুত্র কবির উদ্দিন (২৮), খানে বাড়ীর রেজাউল হক এর পুত্র সুমন (১৮), হাড়াইকান্দির আঃ মতিন মিয়ার পুত্র রফিক (৩২), মুরাদনগর উপজেলার জাহাপুর গ্রামের ছিদ্দিক মিয়ার পুত্র শাহজাহান (২৬), ছাদির মিয়ার পুত্র জাকির (১৮), খালেক মিয়ার পুত্র জাকির হোসেন (২৫), সুবলার চরের বজলুর রহমানের পুত্র মোজাম্মেল হক লিটন (৩৫)কে গ্রেফতার করে।
ঘটাবহুল এসব ছিনতাই, ডাকাতি, অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা ও হত্যাকান্ড এবং একটি খেলাকে কেন্দ্র করে ১৪৪ ধারা জারি তিতাসের আইন শৃংখলা পরিস্থিতি মূল্যায়নের জন্য যথেষ্ট। এ ব্যাপারে তিতাস উপজেলা চেয়ারম্যান পারভেজ হোসেন সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি একে আইন শৃংখলার অবনতি আখ্যায়িত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া আবশ্যক বলে মনে করেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন, পূর্বে কমিউনিটি পুলিশ এবং থানা পুলিশ তৎপর থাকায় এমন ঘটনা ঘটেনি।
বলার অপেক্ষা রাখে না, গৌরীপুর হোমনা সড়কে বেপরোয়া গতিতে অনেক রুট পারমিট বিহীন ট্রলি, নিয়ম বহির্ভূত সিলেট, বি.বাড়ীয়া রোডের অনেক সিএনজি, প্রকাশ্যে জুয়ার আসর ও মাদক দ্রব্য বিক্রি কার ইশারায় উল্কার মতো চলছে সে অদৃশ্য ব্যক্তিকে আবিস্কারের মাধ্যমে আইন শৃঙ্খলা রক্ষার্থে তিতাসবাসীকেই সর্বপ্রথম এগিয়ে আসতে হবে।
pic 6
তিতাস থানায় এ যাবৎ দায়েরকৃত হত্যা মামলা গুলোর মধ্যে ৯টি মামলায় চার্জশীট, ১২টি মামলায় ফাইনাল রিপোর্ট এবং ৫টি মামলায় তথ্যাগত ভুল রয়েছে মর্মে প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়েছে। দু’টি মামলার তদন্তভার এখন ডিবিতে রয়েছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...