লাকসামে রেলওয়ের ভূমি বেদখলে

লাকসাম প্রতিনিধি :
লাকসাম রেলওয়ে জংশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য নির্মিত রেলওয়ের প্রায় তিন শতাধিক কোয়ার্টার খালি অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এই সুযোগে রেলওয়ের কোটি কোটি টাকার ভূমি বেদখল হয়ে গেছে। কোয়ার্টারগুলোর অধিকাংশের দরজা-জানালা, ছাউনির টিন ও দেয়ালের ইট লুটপাট করে একশ্রেণীর লোকজন নিয়ে যাচ্ছে।
রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, শতবর্ষের নির্মিত ঐতিহ্যবাহী লাকসাম রেল জংশন বর্তমানে লাকসাম রিমডেলিং রেল জংশন এলাকাসহ লাকসাম-চাঁদপুর শাখা লাইন ও লাকসাম-নোয়াখালী শাখা লাইনের সহস্রাধিক কোয়ার্টারের মধ্যে বর্তমানে প্রায় তিন শতাধিক কোয়ার্টারে বসবাসরত রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গোল্ডেন হেন্ডশেক, চাকরি থেকে অবসর এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অন্যত্র বদলি হওয়ায় কোয়ার্টারগুলো খালি অবস্থায় পড়ে রয়েছে। রেল কর্মচারীদের সহায়তায় খালি বাসভবনে বিদ্যুত্ সংযোগ দিয়ে অবৈধভাবে লোকজন বসবাস করছে। লাকসাম জংশনে রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য নির্মিত লোকো কলোনি, বাজার কলোনি, জিআরপি কলোনি ও কলাবাগান কলোনি, নিউ কলোনি, ইঞ্জিয়ারিং কলোনি ও ট্রাফিক কলোনির ৪৭৮টি কোয়ার্টারের মধ্যে বর্তমানে ১১৯টি, নোয়াখালী লাইনের ১৪৪টির মধ্যে ২১টি, চাঁদপুর লাইন ও চাঁদপুর সদরের শতাধিক কোয়ার্টার খালি অবস্থায় পড়ে রয়েছে। রেলওয়ের সংকোচন নীতি, গোল্ডেন হেন্ডশেক, অবসর গ্রহণ ও অন্যান্য কারণে দিন দিন আরও কোয়ার্টার খালি হচ্ছে। খালি কোয়ার্টারগুলো বেদখল হয়ে পড়ায় বাংলাদেশ রেলওয়ে লাখ লাখ টাকা রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
অনেকেই রেলওয়ের ভূমি লিজ নিয়ে স্ট্যাম্পের মাধ্যমে বিক্রি করছে এবং ব্যবসা-বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে। দখলকারীরা এভাবে রেলওয়ের ভূমি বিক্রি করে মোটা অঙ্কের টাকার মালিক বনে গেছে। রেলওয়ের একশ্রেণীর কর্মচারী স্বার্থের বিনিময়ে ভূমি বেদখলে লোকজনকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে লাকসাম রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পূর্ত) জানান, ডিভিশনাল ইঞ্জিনিয়ারকে লেখালেখি করেছি এবং পাহারা দেয়ার মতো লোকজন নেই। ফলে যেমন রেলওয়ের কোটি কোটি টাকার সম্পদ বেদখল ও লুটপাট হচ্ছে, তেমনি কোয়ার্টারগুলো অবৈধভাবে বেদখল হয়ে যাচ্ছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...