চান্দিনার কংগাই গণ-কবরটি এখন বাঁশঝাড়, সংরক্ষণের উদ্যোগ নেই

Chandina picture 15-12-09-2
মাসুমুর রহমান মাসুদ (চান্দিনা প্রতিনিধি):
চান্দিনার কংগাই গণ-কবরটি অযত্ন আর অবহেলায় পড়ে আছে দীর্ঘদিন ধরে। গণ-কবরটি এখন বাঁশ ঝাড়ে পরিণত হয়ে নিশ্চিহ্ন হতে চলেছে। স্বাধীনতার ৩৮ বছর অতিবাহিত হলেও গণ-কবরটি সংরক্ষণের কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন কংগাই গ্রামের ৭ জন নিরপরাধ ব্যক্তিকে নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করে পাকহানাদার বাহিনী। পরে তাদেরকে একটি গর্ত করে পুঁতে ফেলা হয়। এরা হলো- আবব্দুস সামাদ, ধনু মিয়া, বজলুর রহমান, মুসলেহ উদ্দিন, আবিদ আলী, আয়েত আলী ও আফসার আলী।
এলাকাবাসী জানায়, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন চান্দিনা উপজেলার কংগাই গ্রামে মুক্তিযোদ্ধারা অবস্থান করছিলেন। ওই খবর পেয়ে পাকিস্তানি শতাধিক সৈন্যের একটি বাহিনী ওই গ্রামে প্রবেশ করে। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধারা ওই পাকবাহিনীর সাথে মোকাবেলা করার মতো গোলাবারুদ না থাকায় অন্যত্র চলে যায়। মুক্তিযোদ্ধাদের না পেয়ে ক্ষুব্ধ পাক বাহিনী ওই সাত ব্যক্তিকে হত্যা করে। বিভীষিকাময় ওই মুহুর্তে এলাকার অনেকেই নিজেদের জীবন রক্ষায় পালিয়ে বেড়াচ্ছিল। পরে এলাকাবাসী তরিঘরি করে ওই সাত ব্যক্তির লাশ একটি গর্ত করে পুঁতে ফেলে।
কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য মুক্তিযোদ্ধের ৩৮ বছর পরও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত ওই গণ-কবরটি আজও সংরক্ষণ করা হয়নি এমনকি ওই স্থানে এখনও পর্যন্ত স্থায়ী কোন স্মৃতিস্তম্ভ গড়ে উঠেনি । কেউ খবর নেয়নি পাক বাহিনীর হাতে হত্যার শিকার ওই ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যদের।
সারেজমিনে দেখাগেছে, গণকবরটিতে যাওয়ার কোন রাস্তা নেই। গণকবরটির আশেপাশে ময়লা আবর্জনা আর লতা-পাতায় জঙ্গলে পরিণত হয়েছে। গণকবরটি সংরক্ষণের ব্যবস্থাকরে এখানে একটি স্মৃতি ফলক নির্মাণের দাবী জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধাসহ স্থানীয়রা।
এখানে সরকারি ভাবে গণকবরটিকে সংরক্ষণ ও নিহত সাত ব্যক্তির নাম সম্বলিত একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করার দাবি জানিয়েছেন চান্দিনা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মোঃ আব্দুল মালেক। তিনি আরও বলেন, গণ-কবরটি সংরক্ষণ করা না হলে নতুন প্রজন্ম ওই নৃশংস ঘটনাটি জানতে পারবে না। জানবে না মুক্তিযোদ্ধের সঠিক ইতিহাস।
এ ব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোসাম্মৎ হাজেরা খাতুন জানান, আমি সম্প্রতি বিষয়টি জেনেছি। আগামী ২১ ফেব্র“য়ারীর মধ্যে সেখানে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...