কুয়াশার চাদর মুড়িয়ে গুটি গুটি পায়ে আসছে শীত লেপ তৈরিতে ব্যস্ত কুমিল্লার ধুনকররা

লেপ তৈরিতে ব্যস্ত কুমিল্লার ধুনকররা
লেপ তৈরিতে ব্যস্ত কুমিল্লার ধুনকররা
কুমিল্লা প্রতিনিধি :
আশ্বিন পেরিয়ে এখন কার্তিক। ঋতু পরিক্রমায় শীত আসতে এখনও কিছুদিন বাকি। কিন্তু কুমিল্লা শহরজুড়ে এখনই চলছে শীতের আমেজ। শহরে ধীরপায়ে শীত নামতে শুরু করেছে। সন্ধ্যার পর এবং ভোরে ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়ছে শহর। রাত গভীর হলে ঘুমোতে কাঁথা কম্বল গায়ে জড়াতে হচ্ছে । শহরের মনোহরপুর,মুরাদপুর,ঢুলীপাড়া,চকবাজার,হাউজিং এলাকা ঘুরে দেখা যায়, প্রায় দেড়শ’ ধুনকার পরিবার লেপ-তোষক তৈরি ও বিক্রির কাজে নিয়োজিত আছে । লেপ-তোষকের দোকানের মালিকসহ নারী ও পুরুষ শ্রমিকদের খাওয়া-দাওয়ারও ফুসরৎ নেই। কেউ তুলো ধুনছে, কেউ ব্যস্ত লেপ-তোষক সেলাইয়ের কাজে। লেপ-তোষকের দোকানগুলোতে ক্রেতা সমাগমও লক্ষ্য করা গেছে ব্যাপক। শীত এগিয়ে আসায় মোড়ে মোড়ে বিক্রি হচ্ছে ভাঁপা পিঠা। খেজুর গাছে রসের হাঁড়ি বাঁধছেন সদর দক্ষিন,চান্দিনা,দেবিদ্ধারসহ অন্যান্য উপজেলার কৃষকরা। সবকিছুই জানান দিচ্ছে, শীত আসছে, কড়া নাড়ছে দরজায়। ইতিমধ্যে শীত মোকাবেলায় শহরবাসী প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন। গরম কাপড় কিনছেন। অনেকেই লেপ-তোষক তৈরি করছেন।
গত সপ্তাহ থেকে পাখিডাকা ভোরে ধুনকররা তুলা, কাপড় ও ধুনার নিয়ে বেরিয়ে পড়ছে। কেউ বা সাইকেলে, কেউবা ভ্যানে আবার কেউ পায়ে হেঁটে ঘুরছে শহরের অলি-গলিতে। সকাল থেকে দুপুর অবধি একটি বাড়িতে লেপ বা তোষক তৈরি করলেও অর্ডার নিচ্ছে পরেরদিনের। শহরের মনোহরপুর এলাকার লেপ-তোষক তৈরিকারী দোকানগুলিতেও অতিরিক্ত কারিগর কাজ করছে। দোকানগুলিতে শুরু হয়েছে শীতের কাপড় বিক্রি। পুরাতন কাপড়ের দোকানগুলিতে বাড়ছে ক্রেতাদের আনাগোনা। মনোহরপুর এলাকার ধুনকর ননীগোপাল দাস (৬২) জানান, মাসখানেক আগে থেকেই লেপ তৈরির অর্ডার শুরু হয়েছে। প্রতিদিন গড়ে ১০-১৫টির অর্ডার আসছে। এখন তার কারখানায় ধুনকররা রাত-দিন সমানতালেই কাজ করে যাচ্ছে। তিনি আরো জানান, বছরের অন্যান্য সময় তোষক-বালিশসহ টুকিটাকি কাজ হয়ে থাকে। তবে সারা বছরের মধ্যে শীত মৌসুমেই তাদের বেশী কাজ হয়।তিনি জানান, প্রতিটি লেপ-তোষকে মজুরীবাবদ ৭৫ টাকা পায় ১জন ধুনকর। তার কারখানায় ইতোমধ্যে গতমাসে প্রায় তিনশতাধিক লেপ-তোষক তৈরি হয়েছে। মনোহরপুর এলাকার লেপ-তোষক ব্যবসায়ী মিঠু জানান, আসছে শীত মৌসুমে বেশী শীত পড়তে পারে এ ধারণায় ক্রেতারা আগে থেকেই লেপ-তোষক তৈরি করে নিচ্ছে। শহর ঘুরে দেখা যায় লেপ-তোষকের দোকান গুলোতে প্রতিটি লেপ ৭০০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...