কুমিল্লায় প্রথম জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় ৮ ডিসেম্বর

Comilla Freedom fight
সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী :
বছর ঘুরে আবার এসেছে বাঙ্গালী জাতির ঐতিহাসিক বিজয়ের মাস ডিসেম্বর।
দীর্ঘ নয় মাসের রক্তাক্ত যুদ্ধের পর এ ডিসেম্বর মাসেই বাঙ্গালী জাতির বহু আকাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অর্জিত হয়। বাঙ্গালী জাতির বীর মুক্তিযোদ্ধারা জীবনের মায়া ত্যাগ করে প্রিয় মাতৃভূমিকে পাক হানাদার মুক্ত করার লক্ষ্যে স্বাধীনতার লড়াইয়ে ঝাপিয়ে পড়ে। বাঙ্গালীর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা, যৌথ ও মিত্র বাহিনীর উর্পযুপরি আক্রমনে পরাস্ত হয় পাক হানাদার বাহিনী। আর এ ভাবেই যৌথ আক্রমনের ফলে বিভিন্ন অঞ্চল পাক হানাদার মুক্ত হতে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর বৃহওর কুমিল্লা পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর কালো থাবা থেকে মুক্ত হয়। তাই ঐ দিন মুক্তিযোদ্ধা, মিত্রবাহিনী ও কুমিল্লার সর্বস্তরের মানুষ আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠে। সর্বত্রই ছিল নতুন প্রানের আনন্দ। মুক্তি পাগল মানুষের জয় বাংলা ধ্বনিতে প্রকম্পিত হয়ে উঠে কুমিল্লা। তাদের হাতে শোভা পাচ্ছিল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মানের শক্তি। অনেক ত্যাগ তিতিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত এ স্বাধীনতা কুমিল্লাবাসীর মাঝে নতুনভাবে বেঁচে থাকার প্রেরণা সৃষ্টি করে। ৭১ সালের ডিসেম্বরের দিকে মুক্তি বাহিনীর আক্রমন আরো জোরালো হয়। এ সময়েই কুমিল্লা ও লাকসামে পাকিস্তান বাহিনীর ১১৭ ব্রিগেড ও ৫৩ পদাতিক ব্রিগেড দায়িত্বাধীন ছিল। কুমিল্লা মুক্তিবাহিনীরা নভেম্বরের মাঝা-মাঝিতে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে চূড়ান্ত অভিযান শুরু করে। এ অভিযান কুমিল্লার বেশ কিছু অঞ্চল বিশেষ করে বিবির বাজার, নিশ্চিন্তপুর, চৌদ্দগ্রাম, বেলুনিয়া, ইটালা ও মাঝিগাছায় বেপরোয়া হয়ে উঠে নভেম্বরের শেষের দিকে পাকিস্তানি বাহিনী মুক্তিবাহিনীর আক্রমনের কাছে হার মেনে পিছু হঠে। ২৮ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা চৌদ্দগ্রামের জগন্নাথদিঘী এলাকা দখল করে নেয়। এ দখলকৃত এলাকাটিই কুমিল্লার প্রথম মুক্তাঞ্চল।
Freedom fight of Comilla
৩ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত যৌথবাহিনীর যোদ্ধারা কুমিল্লার ময়নামতি আক্রমনের জন্যে প্রস্তুতি গ্রহণ করে । এই দিনে রাতে ভারতীয় সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল আর.ডি হিরার নেতৃত্বাধীন ২৩ মাউন্টেন ডিভিশনের দায়িত্বে যৌথবাহিনীর ৩০১ মাউন্ট ব্রিগ্রেড এবং মুক্তিবাহিনীর ইর্স্টান সেক্টর লালমাই পাহাড় ও লাকসামে পাকিস্তানি প্রতিরক্ষা ব্যুহ ভেঙ্গে ফেলে এবং লাকসাম কুমিল্লা পথের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করে দেয়। লাকসামের মুদাফ্ফরগঞ্জে হানাদার বাহিনীর সাথে মুক্তিবাহিনীর মুখোমুখি সংর্ঘষ ঘটে।এই সংর্ঘষে হানাদার বাহিনী পরাজিত হয় এবং ৬ ডিসেম্বর মুদাফ্ফরগঞ্জ মুক্ত হয়। পরের দিন মুক্তিবাহিনী ঢাকার সাথে ময়নামতির সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়। এদিকে লাকসামের ঘাঁটি রক্ষায় পাকিস্তান বাহিনী মরিয়া হয়ে উঠে। পাকিস্তান বাহিনীর ২২ বেলুচ রেজিমেন্ট কুমিল্লা বিমানবন্দর (বর্তমানে কুমিল্লা ইপিজেড) সংলগ্ন সীমান্তবর্তী স্থানে অবস্থান গ্রহন করে । ৭ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনীর সাথে পাকিস্তান বাহিনীর সংর্ঘষ হয় এবং এই সংঘর্ষে মুক্তিবাহিনীর ২৭ জন যোদ্ধা শহীদ হয়। পরাজিত পাকিস্তান বাহিনী পিছু হটে এবং সেনানিবাসে অবস্থান নেয়। মুক্তিবাহিনী মুক্ত কুমিল্লায় প্রবেশ করতে থাকে এবং ৮ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা কুমিল্লায় মুক্তদিবস উদযাপন করে। ৮ তারিখ যে ২৭ জন যোদ্ধা কুমিল্লার মাটিতে পা রাখেন তারা সকলেই এফ এফ বাহিনীর। শহর মুক্ত হয়েছিল ঠিকই কিন্তু পাকিস্তান বাহিনী তখনও সেনানিবাসে। হানাদার বাহিনী সেনানিবাসে তাদের অবস্থান স্থলে শক্তিশালী প্রতিরক্ষা ব্যুহ গড়ে তোলে। ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তান বাহিনী সদলবলে আত্মসমর্পন করে। এদের মধ্যে ২ জন ব্রিগেডিয়ার, ৭৬ জন অফিসার, ১৭৫ জন জেসিও এবং ৩৯১৮ জন সৈন্য ছিল। আনুষ্ঠানিকভাবে কুমিল্লায় প্রথম জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় ৮ ডিসেম্বর বিকালে কুমিল্লা টাউন হল মাঠে। বীর মুক্তিযোদ্ধা, মিত্রবাহিনী, উৎসুক জনতার উপস্থিতিতে তৎকালীন দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মরহুম জহুর আহমেদ চৌধুরী ও কুমিল্লার প্রথম জেলা প্রশাসক এডভোকেট আহমেদ জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...