জেলা প্রশাসকের নির্দেশনা উপেক্ষা করে কুমিল্লার দেবিদ্বারে শিক্ষার্থীদের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে সাংসদকে অভ্যর্থনা

শনিবার কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বারে স্থানীয় সাংসদকে অভ্যর্থনা জানাতে দুটি  শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের এভাবেই রোদে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়।  - ছবি : কুমিল্লাওয়েব
শনিবার কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বারে স্থানীয় সাংসদকে অভ্যর্থনা জানাতে দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের এভাবেই রোদে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। - ছবি : কুমিল্লাওয়েব
স্টাফ রিপোর্টার : ‘কখন আসবে এমপি সাহেব, আর কতো অপেক্ষা ’ -শনিবার দুপুরে প্রখর রোদে দাঁড়িয়ে এমন অপ্রত্যাশিত অনেক প্রশ্নই শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে রেখেছিল কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলার ভিড়াল্লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং বারেরা মহিলা দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা। ওই দুটি প্রতিষ্ঠানে স্থানীয় আ’লীগ দলীয় সাংসদ ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ্ব এবিএম গোলাম মোস্তফার আগমন উপলক্ষে শনিবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর পৌনে ২টা পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। গত সপ্তাহে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোঃ আবদুল মালেক সরকারি কিংবা বেসরকারি ভিআইপিদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের রাস্তায় দাঁড় করানোর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে পত্র প্রেরণ করেছন।
দুটি অনুষ্ঠানস্থলে গিয়ে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে আলাপ করে জানা যায় স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব এবিএম গোলাম মোস্তফা শনিবার উপজেলার বিভিন্ন স্থানে কয়েকটি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে দুপুরে ভিড়াল্লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং বারেরা মহিলা দাখিল মাদ্রাসায় যান। কিন্তু ওই দুটি প্রতিষ্ঠানে সাংসদের আগমন উপলক্ষে সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর প্রায় পৌনে ২টা পর্যন্ত সাংসদ ও তার সাথে থাকা দলীয় নেতাকর্মী এবং প্রশাসনের কর্মকর্তাদের অভ্যর্থনা জানাতে শিক্ষার্থীরা প্রখর রোদে দাঁড়িয়ে থাকে। এ সময় রোদের উত্তাপে অনেক শিক্ষার্থীর মাঝে চরম ক্ষোভ দেখা দিলেও শিক্ষকদের নির্দেশের কারনে সাংসদ ও অন্যান্য অতিথিরা অনুষ্ঠানস্থলে না আসা পর্যন্ত সবাইকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। দুপুর সাড়ে ১২টায় ভিড়াল্লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা যখন রাস্তায় দাড়িয়ে ছিল তখন সেখানে উপজেলা শিক্ষা অফিসার শাহ মোঃ ইকবাল মনসুর উপস্থিত ছিলেন। ভিআইপিদের সংবর্ধনায় শিক্ষার্থীদের রাস্তায় দাঁড় করানোর বিষয়ে জেলা প্রশাসকের নির্দেশনা উপেক্ষা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে জেলা প্রশাসকের ওই নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি স্বীকার করে শিক্ষা অফিসার জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষ নিজ দায়িত্বে শিক্ষার্থীদের রাস্তায় দাঁড় করিয়েছে, রাস্তায় দাড় করানোর বিষয়ে শিক্ষা অফিসের কোন নির্দেশ ছিল না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলা প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা জানান জেলা প্রশাসকের ওই উদ্যোগটি খুবই প্রশংসনীয়, এ খবর বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ার পরও প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের রাস্তায় এনে দাড় করানো খুবই দুঃখজনক।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...