BIGtheme.net http://bigtheme.net/ecommerce/opencart OpenCart Templates
Home / প্রচ্ছদ / কুমিল্লা জেলা / আন্তার্জাতিক বাজারে কুমিল্লা ইপিজেডের গ্রীনস্টার ফ্যাক্টরি পলি ব্যাগ রপ্তানি শুরু

আন্তার্জাতিক বাজারে কুমিল্লা ইপিজেডের গ্রীনস্টার ফ্যাক্টরি পলি ব্যাগ রপ্তানি শুরু

জামাল উদ্দিন স্বপন:
আন্তার্জাতিক বাজারে গ্রীন স্টার ফ্যাক্টর পলি ব্যাগের ব্যাপক চাহিদা থাকায় চট্রগ্রাম কাস্টমের সাথে মামলার জটিলতার কারনে ১১ মাস আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ছিল। চট্রগ্রাম কাস্টম মামলা প্রত্যাহারে কপি গত ২৩ নভেম্বর কুমিল্লা ইপিজেড গ্রীন স্টার লিমিটেডে পাঠানোর পর আর কোন বাধা না থাকায় এখন আন্তজার্তিক বাজারে আমদানি-রপ্তানি করতে পারবে বলে জানায় গ্রীন স্টার কর্তৃপক্ষ। গ্রীন স্টার সূত্রে জানায়,গত ১১ সেপ্টেম্বর আমেরিকার বায়ার ওর্য়াকাস মাদানি ও ২২ সেপ্টেম্বর ক্যাপিটাল পলি এবং ১৯ সেপ্টেম্বর জাপানে বায়ার মিয়া জার্কি কুমিল্লা ইপিজেডে গ্রীণ স্টার ফ্যাক্টরিতে এসে পলি ব্যাগ দেখে প্রায় ১০ কোটি টাকার মালের অর্ডার দিয়ে যায়। কাস্টমের সাথে মালার জলিতার কারনে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকলেও ফ্যাক্টরিতে ঊৎপাদন ছিল বলে জানায়। জানা যায়, গ্রীণ স্টার ফ্যাক্টরি ২০০৭ কুমিল্লা ইপিজেড্রেপ্রায় ২ হাজার স্কয়ার মিটারে নিয়ে ফ্যাক্টরিটি গড়ে উঠেছে । তখন ফ্যাক্টরি মালিক ছিলেন কিশোরগঞ্জে জেলার সিদ্দিকুর রহমান। পরে ২০১০ সালে ফ্যাক্টরিটি বিক্রি করেদেন কুমিল্লা সুনামধন্য ব্যবসায় লেয়াকত আলী দুলালের কাছে। লেয়াকত আলী দুলাল ও তার ছেলে আলী ইমরান পায়েল দুই জনের শেয়ারে মাধ্যমে গত ২০১০ সালে এক বছরে ৩ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে লাভ করেন প্রায় ৫০ লাখ টাকা। ২০১১ সালে চট্রগ্রাম কাস্টমের সাথে মামলার থাকায় আন্তর্জাতিক বাজার রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায়। তবে কোম্পানি উৎপাদন ছিল অব্যাহত। তখন ফ্যাক্টরিতে ৮০ জন শ্রমিক কাজ করত। পুরুষ শ্রমিক ছিল ২৬ জন আর মহিলা শ্রমিক ছিল ৫৪ জন। ২০১০ সালে আমেরিকায় ও বেজিয়ামে পলি ব্যাগ রপ্তানি হত। গ্রীণ স্টার ফ্যাক্টরি জেনারেল ম্যানেজার সফিকুল হক জানান,আমেরিকা ও জাপানের বায়ার মালের অর্ডার দেওয়ার পরও আরো কয়েকটি দেশ আসচ্ছে পলি ব্যাগের ওয়ার্ডার দেওয়ার জন্য। আমেরিকা ও জাপানে প্রতি মাসে মাল পাঠাতে হবে। তিনি বলেন চট্রগ্রাম কাস্টমের সাথে মামলা থাকায় আমদানি- রপ্তানি বন্ধ ছিল। এখন কাস্টম মামলা প্রতাহার করে নেওয়ায় আমরা আন্তাজার্তিক বাজার আবার আমদানি-রপ্তানি করতে পারব। ২০১২ সালে মধ্যে বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক অর্ডার আসচ্ছে। ফ্যাক্টরি আরো শ্রমিক নিয়োগ করা হবে। সফিকুল ইসলাম বলেন,আমিকায় বায়ারা যে পরিমান মাল চেয়েছে কুমিল্লা ইপিজেডটি যদি পলি ব্যাগ ফ্যাক্টরি করা হয় তারপর মাল দিয়ে শেষ করা যাবে না। নিউওর্য়েক থেকে আমাদের ফ্যাক্টরিতে বায়ারা এসে ছিল ১০ বছরে জন্য চুক্তি করার জন্য। কিন্তু আমরা চুক্তি করি নাই। কারন ১০ বছরে জন্য চুক্তি করতে হলে আরো ৪টি ফ্যাক্টরি করতে হবে। বর্তমান ফ্যাক্টরিতে চায়না মেশিনারি দিয়ে মাল উৎপাদন করা হয়। আমরা তাইওয়ান থেকে আরো নতুন মেশিন আমদানি করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন,পলি ব্যাগ তৈরি করার জন্য কাতার ও মালশিয়া থেকে কাচামাল আমদানি করা হয়ে থাকে।

Check Also

Muradnagar=23-03-19=

করিমপুর মাদরাসায় বোখারী শরীফের খতম ও দোয়া

মো. হাবিবুর রহমান :– কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার করিমপুর জামিয়া দারুল উলূম মুহিউস্ সুন্নাহ মাদরাসায় ১৪৪০ ...

Leave a Reply