BIGtheme.net http://bigtheme.net/ecommerce/opencart OpenCart Templates
Home / প্রচ্ছদ / কুমিল্লা জেলা / বিএনপি’র জাতীয় কাউন্সিলে দলটির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার ভাষণ

বিএনপি’র জাতীয় কাউন্সিলে দলটির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার ভাষণ

কাউন্সিলে ভাষণ দিচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া
কাউন্সিলে ভাষণ দিচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

সম্মানিত দেশী ও বিদেশী আমন্ত্রিত অতিথিগণ,
সহকর্মী নেতৃবৃন্দ,
প্রিয় সাংবাদিকগণ,
এবং
সারাদেশ থেকে আগত কাউন্সিলর ও ডেলিগেট ভাই ও বোনেরা,
আসসালামুলাইকুম।
আজ আপনারা এখানে, এই সম্মেলন কেন্দ্রে সমবেত হয়েছেন বিএনপি-র জাতীয় কাউন্সিলে। আপনারা এসেছেন উত্তরে পঞ্চগড় থেকে, দক্ষিণে কক্সবাজার থেকে, পশ্চিমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে, পূর্বে সিলেট থেকে। আপনারা এসেছেন উত্তরে ইউকে থেকে, দক্ষিণে অস্ট্রেলিয়া থেকে, পশ্চিমে আমেরিকা থেকে, পূর্বে মালয়শিয়া থেকে।
আজ এখানে ঘটেছে সর্বস্তরের, সর্বশ্রেণীর মানুষের এক মহা-সম্মিলন। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় আপনারা সবাই ঘটিয়েছেন এক অভূতপূর্ব বিশাল জনসমাবেশ।
মহান বিজয়ের মাসে অনুষ্ঠিত জনগণের বিপুল সমর্থনধন্য দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল – বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ৫ম জাতীয় কাউন্সিলের এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমি আপনাদের সকলকে স্বাগতঃ জানাচ্ছি।
মাত্র কিছুদিন আগেই আমরা আমাদের দলের ৩১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করেছি। দেশ ও দেশের মানুষের সেবায় এই ৩১ বছর ধরে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে আপনাদের যে সহযোগিতা ও সমর্থন আমরা পেয়েছি – সে জন্য আপনাদেরকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।
আজকের এই মহতী সম্মেলনের শুরুতেই আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি মহান ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের এবং মাতৃভূমির স্বাধীনতা অর্জনের জন্য অকাতরে জীবন উৎসর্গকারী দেশমাতৃকার বীর সন্তানদের।
শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি জাতীয় নেতা মরহুম শেরে বাংলা এ.কে.ফজলুল হক, আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী এবং শেখ মুজিবর রহমানকে। কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করছি মহান স্বাধীনতার ঘোষক এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে।
শ্রদ্ধা জানাই দেশের সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং যারা বিভিন্নভাবে মহান মুক্তিযুদ্ধে সহায়তা করেছেন, নানা নির্যাতন ও জুলুমের শিকার হয়েছেন – তাঁদের সকলের প্রতি।
গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে যারা জীবন উৎসর্গ করেছেন, গণতন্ত্র সুরক্ষার লড়াইয়ে যারা ত্যাগ শিকার করেছেন এবং জনগণের পক্ষে কাজ করতে গিয়ে আমাদের যেসব সাথী জীবন দিয়েছেন – আজ তাঁদের স্মৃতির প্রতিও জানাচ্ছি গভীর শ্রদ্ধা।
সংগ্রামী ভাই ও বোনেরা,
মাত্র পঁয়ত্রিশ মাস আগেও আজকের এই মহা-সম্মিলন ছিল কল্পনারও অতীত।
আপনারা সবাই জানেন, প্রায় পঁয়ত্রিশ মাস আগে ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি বাংলাদেশে কী ঘটেছিল!
আপনারা জানেন, সেই দিনটির নাম চক্রান্তকারীরা দিয়েছে ইংরেজি ভাষায় ‘ওয়ান ইলেভেন’।
এই নামটি তারা নকল করেছিল ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর-এ আমেরিকায় টুইন টাওয়ার ও পেন্টাগনে গেরিলা হামলার অনুকরণে যার নাম হয়েছিল ‘নাইন-ইলেভেন’।
সেই নাইন-ইলেভেনের গেরিলা হামলা আমেরিকার হৃদপিন্ডে আঘাত করেছিল।
আর ঠিক একইভাবে সেই ওয়ান-ইলেভেনের চক্রান্তকারীরা বাংলাদেশের হৃদপিন্ডে আঘাত করেছিল।
আপনারা জানেন, দেশের সংবিধান অনুযায়ী ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারি জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিল। সেই নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত জেনে একটি মহল নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র শুরু করে। গণতন্ত্র ও সাংবিধানিক শাসনের ধারাবাহিকতা নস্যাৎ করার এই ষড়যন্ত্রে যোগ দেয় দেশী-বিদেশী স্বার্থান্বেষী মহল।
সেই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে ঢাকার রাজপথে প্রকাশ্য দিবালোকে লগি-বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে পৈশাচিক কায়দায় মানুষ খুন করা হয়। অব্যাহত অবরোধের মাধ্যমে জনগণকে জিম্মি এবং জাতীয় অর্থনীতির সীমাহীন ক্ষতিসাধন করা হয়। এভাবেই অগণতান্ত্রিক ও অসাংবিধানিক শাসন জারির ক্ষেত্র প্রস্তুত করা হয়।
এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি দেশবাসীর উপর এক ভয়ঙ্কর দৈত্যের মতো চেপে বসে জরুরি অবস্থার আবরণে সেনাবাহিনীর কতিপয় উচ্চাভিলাষী ব্যক্তি সমর্থিত একটি অসাংবিধানিক সরকার। দেশের সংবিধান এবং প্রচলিত সব রীতি-নীতি উপেক্ষা করে দীর্ঘ দুই বছর ধরে চলতে থাকে সেই অবৈধ সরকারের গণতন্ত্র-বিনাশী ও জনস্বার্থ বিরোধী অপশাসন।
ওই অবৈধ সরকারের গণবিরোধী সাঁড়াশি অভিযানের টার্গেট ছিল একদিকে দেশের সর্ব অঞ্চলের সর্বস্তরের রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা এবং অন্যদিকে টার্গেট ছিল দেশের সর্ব অঞ্চলের সর্ব শ্রেণীর ব্যবসায়ীরা। তাদের শিকার হন রাজধানী ও মফস্বলের উঁচু ও নিচু পর্যায়ের সব রাজনৈতিক নেতা-কর্মী। তাদের শিকার হন রাজধানী ও গ্রাম-গঞ্জের ছোটবড় সব ব্যবসায়ী।
ভেঙে ফেলা হয় যুগ যুগ ধরে চলে আসা গ্রামগঞ্জের হাট-বাজার। ভেঙে ফেলা হয় শহরের ফুটপাথে হকারদের বাজার। তাদের কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা দিয়ে তৈরি করা হয় তামাশার মার্কেট হলিডে মার্কেট!
ভেঙে ফেলা হয় শহরের বহু বাড়ি-ঘর। ভেঙে ফেলা হয় বহু বস্তি ও উপশহর।
সর্বনাশা ভাঙ্গনের সেই সরকার সৃষ্টি করতে পারেনি কিছুই। বরং তারা কর্মহীন, গৃহহীন করে ফেলে লাখ লাখ মানুষকে। অসহায় হয়ে পড়ে অসংখ্য পরিবার।
অবৈধ সেই সরকার মানুষের গচ্ছিত সঞ্চয় ও পুঁজিতে হাত দিয়েছিল। রাষ্ট্রীয় কোষাগারে টাকা জমা দেয়ার নামে জবরদস্তি করে তারা শত শত কোটি টাকা চাঁদা তুলেছিল। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের সাম্প্রতিক এক তথ্য অনুযায়ী জোর করে আদায় করা সেই টাকার সামান্য অংশই রাষ্ট্রীয় তহবিলে জমা হয়েছিল।
দুর্নীত দমনের নামে দুর্নীতির এই ব্যাপক ও অবাধ চর্চা মানুষকে হতভম্ব করে দিয়েছিল। এটাকে প্রতিরোধের ক্ষমতা নিরস্ত্র মানুষের ছিল না। তাদের অনেকেই জেলবন্দী হন। অনেকে পালিয়ে যান বিদেশে। আর বেশির ভাগই আতংকে থাকেন নিজের দেশেই।
রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ও ব্যবসায়ীদের রিমান্ডে নিয়ে, চরম নির্যাতন করে, ভূয়া স্বীকারোক্তির মাধ্যমে তারা একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের করতে থাকে। বস্তুত তাদের প্রশাসনিক কাজ তখন শুধু গ্রেফতার, রিমান্ড, টর্চার ও মামলা দায়েরের মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়ে পড়ে। ভীত পলিটিশিয়ান ও সন্ত্রস্ত বিজনেসম্যানদের পক্ষে স্বাভাবিক কাজকর্ম করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। ফলে দেশের ব্যবসা বাণিজ্য সম্পূর্ণ স্থবির হয়ে পড়ে। আর, তার ফলে চাল, ডাল, তেল, নুন, গুড়া দুধ, সব নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্যের দাম বেড়ে যায় বহু গুণ। ১১ জানুয়ারির হোতা মঈনউদ্দিন-ফখরুদ্দিনদের চক্রান্ত করার যোগ্যতা থাকলেও দেশ চালানোর ন্যূনতম যোগ্যতা তাদের ছিল না।
সকল ক্ষেত্রে তাদের স্বেচ্ছাচারিতা ও হস্তক্ষেপ এবং ষড়যন্ত্র ও ব্যর্থতা এক ভয়ঙ্কর অবস্থা ডেকে আনে দেশের জন্য।
তারা সংবিধান ভেঙ্গে তাদের মনের মানুষদের নিয়ে একটি অবৈধ সরকার গঠন করে। তারপর তারা তথাকথিত ‘মাইনাস টু ফর্মুলা’ কার্যকর করতে এগিয়ে যায়। অর্থাৎ বিএনপি এবং আওয়ামী লীগের দুই নেত্রীকে বাদ দিয়ে, বিভিন্ন দল ভেঙে এবং দলছুটদের নিয়ে কিংস পার্টি গঠনের অপচেষ্টা করতে থাকে। অপরদিকে কিছু অনুগত মিডিয়ার মাধ্যমে পলিটিশিয়ানদের চরিত্র হনন প্রক্রিয়া চলতে থাকে।
সেই সরকারের অতি বিপ্লবী ও অতি সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে যোগ দেয় নির্বাচন কমিশন ও বিশেষ আদালত। অবৈধ সরকার, নির্বাচন কমিশন ও বিশেষ আদালতের এই ত্রিভুজ বা ট্রয়কা, বাংলাদেশের অতি কষ্টার্জিত এবং এর মাত্র পনের বছর আগে পুনঃঅর্জিত গণতন্ত্রকে ভেঙ্গে দেয়ার চেষ্টা করে।
জরুরী অবস্থার আওতায় বিএনপির হাজার হাজার নেতা-কর্মীসহ অনেক রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও কর্মকর্তাকে জেল-জুলুম সহ্য করতে হয়। বহুজনকে সাজানো মামলায় প্রহসনের বিচারে ২ থেকে ১০০ বছর পর্যন্ত কারাদন্ড দেয়া হয়।
আমি দেশ ও দলের কথা বললাম। এবারে পরিবার ও ব্যক্তির কথা বিনীতভাবে বলতে চাই।
ওই সময়ে বিএনপির সংগ্রামী নেতা-কর্মীদের, এমনকি তাদের পরিবারের সদস্যদের অহেতুক গ্রেফতার করে তাদের উপর নৃশংস অত্যাচার চালানো হয়। রিমান্ডের নামে নেতা-কর্মীদের ওপর চালানো হয় নিষ্ঠুর নির্যাতন। ভয়-হুমকি দেখানো হয় তাদের স্ত্রী-পুত্র-কন্যাদের।
আমার পরিবারও হয় তাদের নির্মম নির্যাতনের শিকার। আমার দুই ছেলেকেই গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর আমার বড় ছেলে, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব তারেক রহমানকে ভয়ঙ্কর নির্যাতন করে পঙ্গু করে ফেলা হয়। বানোয়াট মামলা রুজু করা হয় বিএনপি নেতা-কর্মী এবং আমার দুই ছেলে ও আমার বিরুদ্ধে।
আমিই যে তাদের সবচেয়ে বড় টার্গেট ছিলাম সেটা আপনারা জানেন। দেশকে বিরাজনীতিকরণের চক্রান্তের অংশ হিসাবে তারা মাইনাস টু ফর্মুলা প্রচার করেছিল। আসলে সেটা ছিল মাইনাস ওয়ান ফর্মুলা- শুধু আমাকে মাইনাস করার ফর্মুলা। তারা জানতো আমাদের প্রিয় দল বিএনপিকে খন্ড-বিখন্ড ও দুর্বল করার প্রক্রিয়া কখনোই সফল হবে না, যদি আমি অটল থাকি। সে কারণেই তারা আমার ছেলেদের জিম্মি করে আমাকে জোর করে কয়েকবার বিদেশে পাঠানোর চেষ্টা করেছিল।
কিন্তু আমি তাদেরকে পরিষ্কার ভাষায় জানিয়ে দেই- এদেশ আমার। এদেশের বাইরে আমার কোনো ঠিকানা নেই। আমার প্রিয় দেশ ও আমার দেশের অসহায় ও অধিকারবিহীন জনগণকে ছেড়ে আমি কোথাও যাবো না। মরতে হলে এদেশের পবিত্র মাটিতেই মরবো।
আমার এই দৃঢ়তা শুধু আমাকে বিদেশে পাঠানোর ষড়যন্ত্রই ব্যর্থ করে দেয়নি, অন্য একটি দলের নেত্রীকেও দেশে ফেরার সুযোগ করে দিয়েছিল।
এখানে আমি সবিনয়ে মনে করিয়ে দিতে চাই, ২০০৭ সালের মার্চ থেকে সেপ্টেম্বরে পর্যন্ত আমি নিজের বাড়িতে অন্তরীণ ছিলাম। তারপর ২০০৭ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আমি সাবজেলে বন্দী ছিলাম।
পক্ষান্তরে অন্য একটি দলের নেত্রী জরুরী অবস্থা জারির পর বিদেশে চলে যান। যাবার সময়ে তিনি ঢাকা এয়ারপোর্টে বলে গিয়েছিলেন, দেশে ফিরে এসে চক্রান্তকারীদের সব কাজের বৈধতা তিনি দিয়ে দেবেন। তিনি ঢাকায় ফিরে আসেন কিন্তু তিনিও জেলবন্দী হন। পরে তাকে আবার বিদেশ চলে যাবার সুযোগ দেয়া হয়।
একটানা দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় ধরে আমি জেলে থাকি। আমার আপোষহীনতাই শেষ পর্যন্ত জয়ী হয়। আমি ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বরে উচ্চ আদালতের রায়ে মুক্ত হই। আর তিনি ফিরে আসেন ২০০৮ সালের নভেম্বর মাসে।
অনেকেই আমাকে জিজ্ঞাসা করেন, কেমন কেটেছে আমার একটানা নির্জন কারাবাস? সেই প্রশ্নের উত্তর দেয়ার সময় এখন নয়। তবে এটুকুই বলতে পারি যে, জেলে আমাকে শুধু একনজর দেখার জন্য আমার বৃদ্ধা মা দিনাজপুর থেকে কষ্ট করে ঢাকায় ছুটে এসেছিলেন, কিন্তু তাকে আমার সাথে দেখা করার সুযোগ দেয়া হয়নি। আমি বেঁচে আছি কিনা, বেঁচে থাকলেও কেমন আছি, এই নিয়ে দুঃশ্চিন্তা ও শোকে মৃত্যুবরণ করেন আমার মা। মাকে দেখার শেষ সুযোগও আমাকে দেয়া হয়নি। আমাকে দেখতে হয়েছে তার লাশ।
শুধু মাকে নয়, কোনো নিকট আত্মীয়-স্বজনকেই আমার সাথে দেখা করতে দেয়া হয়নি। এমনকি আমার মায়ের লাশ দেখার দিন আমার কারারুদ্ধ অসুস্থ ছেলেদের সাথে আমাকে দেখা করতে দেয়া হয়নি। আমার সাথে যাতে তাদের দেখা না হয় সে জন্য আমার দুই অসুস্থ ছেলেকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা থানায় বসিয়ে রাখা হয়েছিল।
এমন নির্মম আচরণ করা হয়েছিল শুধু আমাকে দেশ থেকে চলে যেতে বাধ্য করার জন্য। কিন্তু আমি তাতে রাজি হইনি। এটাই ছিল আমার অপরাধ। আর সেই অপরাধের জন্যই মিথ্যা অভিযোগে দুই পুত্রসহ আমাকে সহ্য করতে হয়েছিল দীর্ঘ জেল-জীবন।
আমি জানি, আমার মতো দুঃখের অভিজ্ঞতা হয়েছে দলমত নির্বিশেষে বহু মা ও বোনের।
দেশের সেই দারুণ দুঃসময় মানুষকে সুদূর অতীতের বর্গীদের হামলার কথা মনে করিয়ে দিয়েছিল। মনে করিয়ে দিয়েছিল নিকট অতীতে একাত্তরে হানাদার বাহিনীর বর্বর হামলার কথা।
আপনারা জানেন, একাত্তরেও আমাকে এক সময়ে খুবই অনিশ্চিত জীবন যাপন করতে হয়েছিল।
স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে আমার স্বামী যখন মুক্তিযুদ্ধে চলে যান তখন আমি জানতাম না, তিনি আদৌ ফিরতে পারবেন কিনা। তখন আমার দুই মাসুম বাচ্চাকে নিয়ে গভীর উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে রাতের পর রাত আমাকে কাটাতে হয়েছিল। মহান আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিনকে হাজার শুকরিয়া, আমার স্বামী ফিরে আসেন বিজয়ী বীর রূপে। কিন্তু আপনারা জানেন এর প্রায় দশ বছর পরে ১৯৮১-তে আমার স্বামী শহীদ হন চট্টগ্রামে। তখন থেকেই আবার শুরু হয় আমার অনিশ্চিত জীবন।
ভেবেছিলাম দুই ছেলেকে নিয়ে বাকি জীবনটা কাটিয়ে দেব। কিন্তু তা সম্ভব হয়নি, আপনাদের কারণে। বিএনপির কারণে। বিএনপির নেতা-কর্মীরাই আমাকে দলে টেনে নিয়ে আসেন।
১৯৮২ সাল থেকে আমি আপনাদের সঙ্গে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলন শুরু করি। ১৯৮৪ সালের এপ্রিল মাসে আমি দলের চেয়ারপার্সনের দায়িত্ব নিই। সেই দায়িত্ব আজও বহন করে চলেছি।
মাত্র কয়েকদিন আগে আমাকে আবারও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় একই পদে নির্বাচিত করা হয়েছে। এর জন্য আমি আপনাদের ধন্যবাদ জানাই। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে আমি এখন খুবই প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছি। নির্জন কারাবাস থেকে সোয়া এক বছর আগে আদালতের রায়ে মুক্ত হলেও আমি এখনো আরেক ধরণের নির্জনতার দণ্ড ভোগ করছি। গুরুতর অসুস্থ আমার দুই পুত্রই এখন চিকিৎসার জন্য বিদেশে পড়ে আছে। আমার অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন ও হিতৈষীদের, এমন কি আমার ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের পর্যন্ত আমার বাসায় আসতে নানাভাবে বাধা দেয়া হচ্ছে।
পবিত্র ঈদের দিনেও লোকজনকে শুভেচ্ছা জানাতে আমার বাসায় আসতে দেয়া হয়না। আমাকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের জন্যও চলছে বিভিন্নমুখী ষড়যন্ত্র। অর্থাৎ এক এগারোর শাসকরা বিদায় নিলেও আমাদের হেনস্তা করার প্রক্রিয়া এখনও থামেনি।
দেশে জরুরি অবস্থা জারির পর এক দারুণ দুঃসময়ে দেশ ও বিদেশে যেসব সহকর্মী অসীম সাহস ও অনড় আনুগত্য নিয়ে দলের কাজ করেছেন, দলের ঐক্য ও সংহতিকে ধরে রেখেছেন আমি তাদের সবাইকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন এবং অজস্র ধন্যবাদ।
আমি গর্বিত যে, ওই দুঃশাসনের দুই বছরের অন্যায়, অনাচার, অত্যাচার দেশবাসী মেনে নেয়নি। এদেশের সচেতন ছাত্র, শিক্ষক, আইনজীবী, লেখক, সাংবাদিক এবং টিভি টকশোর বক্তারা তখন সত্য উচ্চারণ করেছিলেন নির্ভীক চিত্তে। আমি তাদেরও জানাই অভিনন্দন এবং স্বীকার করি কৃতজ্ঞতা।
আপনাদের সবার দেশপ্রেম, গণতান্ত্রিক চেতনা ও দলের প্রতি ভালোবাসার ফসল হচ্ছে আজকের এই মহা-সম্মেলন।
আজকের বিএনপির জাতীয় কাউন্সিল।
বিএনপি ঘুরে দাঁড়িয়েছে।
বিএনপি রুখে দাঁড়িয়েছে।
বিএনপি জিন্দাবাদ।
বাংলাদেশ জিন্দাবাদ।
প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
জানুয়ারি ২০০৭-এ নির্ধারিত সাধারণ নির্বাচন বন্ধ করে যে অবৈধ সরকার ক্ষমতায় এসেছিল বেগতিক দেখে তারাই আবার এ ২০০৮-এর শেষ দিকে সাধারণ নির্বাচন দেয়ার জন্য অস্থির হয়ে পড়ে।
গণবিরোধী একটি অবৈধ সরকারের অধীনে এবং পক্ষপাতমূলক এক নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় যে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না এটা আমরা জানতাম। কিন্তু দেশ ও জনগণের কতিপয় বৃহত্তর স্বার্থ বিবেচনা করে আমরা সেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম।
আপনারা জানেন যে, একটি প্রধান দল এবং তার সহযোগীরা জরুরি অবস্থার মধ্যেই নির্বাচনে অংশ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু আমাদের দৃঢ়তার কারণে নির্বাচনের আগেই সরকার দেশ থেকে জরুরি অবস্থা তুলে নিয়ে, জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছিল। অর্থাৎ এবারও আমরাই জনগণকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিয়েছি।
আমরা বিশ্বাস করি, কোনো অনির্বাচিত ও জনগণের কাছে জবাবদিহি ছাড়া সরকারের চেয়ে একটি নির্বাচিত সরকার ভালো। কারণ, গণতান্ত্রিক পরিবেশে অন্তত জনগণ কথা বলতে পারে, প্রতিবাদ জানাতে পারে এবং প্রয়োজনে আন্দোলন করে সরকার বদলাতে পারে। এটাও ছিল আমাদের নির্বাচনে অংশ নেয়ার আরেকটি কারণ।
আমাদের বিশ্বাস ছিল, নির্বাচন কমিশন যদি পক্ষপাতিত্ব ছেড়ে নিরপেক্ষ অবস্থান নেয়, সরকার যদি সত্যিকারের দল-নিরপেক্ষ ভূমিকা বজায় রাখে এবং জনগণ যদি নির্বিঘ্নে তার ভোট দেওয়ার সুযোগ পান তাহলে অবশ্যই আমরা নির্বাচনে বিজয়ী হবো। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে তা হয়নি। বরং এক সাজানো পাতানো নির্বাচনী প্রহসনে বিএনপিকে হারিয়ে দেয়া হয়। ঘোষিত এই ফলাফল ছিল অস্বাভাবিক, অবিশ্বাস্য ও অপ্রত্যাশিত।
কারণ, এর আগে বিএনপির প্রতিটি সরকারের আমল দেশে-বিদেশে চিহ্নিত হয়েছিল সার্বিক উন্নতির আমল হিসাবে। এ প্রসঙ্গে আমি কয়েকটি বিষয় মাত্র উল্লেখ করতে চাই।
প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
১৯৭৩ সালে গ্রাম এবং শহর অঞ্চলে দরিদ্র জনগোষ্ঠী ছিল যথাক্রমে মোট জনসংখ্যা ৮৩ এবং ৮১ শতাংশ। শহীদ জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি তার জন্মলগ্ন থেকেই দেশ থেকে দারিদ্র্যের এই হার কমিয়ে আনার কার্যক্রম গ্রহণ করে। সম্পদের সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান তাঁর স্বল্পকালীন শাসন আমলে গ্রাম এবং শহরে দারিদ্র্যের হার যথাক্রমে ৭৪ এবং ৬৬ শতাংশে কমিয়ে আনতে সক্ষম হন।
সেই সময় আন্তর্জাতিক মহলে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ নামে পরিচিত বাংলাদেশে মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যে এই অসাধ্য সাধন সম্ভব হয়েছিল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ জিয়ার কর্মকুশলতা এবং সততার সঙ্গে দেশের আবাল-বৃদ্ধ-বনিতার পরিশ্রম যুক্ত হওয়ার ফলে।
প্রায় এক দশকের স্বৈরাচারী শাসনের অবসানে নব্বই-এর দশকের প্রারম্ভে একটি ভঙ্গুর অর্থনীতি নিয়ে আমাদের আবার যাত্রা শুরু করতে হয়। আমরা উপলব্ধি করেছিলাম, দারিদ্রপীড়িত জনগণের উন্নতি সাধন করতে হলে একদিকে যেমন অতি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য কার্যকর সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তুলতে হবে, অন্যদিকে এমন একটি ইতিবাচক সামগ্রিক অর্থনৈতিক পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে যাতে দেশে উৎপাদনশীল খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়।
জনগণের ভোটে এই দুই দফায় মোট দশ বছর রাষ্ট্র পরিচালনার সুযোগ লাভ করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন সরকার বাংলাদেশকে ক্রমশ একটি মধ্যম আয়ের রাষ্ট্রে পরিণত করার লক্ষ্যে ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করেছিল।
২০০১ সালে নিউ ইয়র্কে টুইন টাওয়ার হামলার প্রভাবে বিশ্ব অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া সত্ত্বেও আমরা বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচীতে অব্যাহতভাবে বরাদ্দ বৃদ্ধি করেছিলাম এবং বিনিয়োগ পরিবেশ উন্নতিকল্পে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়েছিলাম। সুদূরপ্রসারী এবং বাস্তবমুখী অর্থনৈতিক দর্শনের জন্য আমাদের দুই দফায় দ্রুত হারে দারিদ্র কমানো সম্ভব হয়েছিল। ১৯৯১-৯২ সাল থেকে ২০০০ সালের মধ্যে দেশে দারিদ্র্যের হার ৫৯ শতাংশ থেকে ৪৯ শতাংশে নেমে আসে। এই হ্রাসের বার্ষিক হার ছিল প্রায় দুই শতাংশ। ২০০১ সালে বিএনপি পুনর্বার সরকার গঠনের পর দ্বিগুণেরও অধিক হারে দারিদ্র্য কমতে থাকে।
২০০১ সাল থেকে ২০০৫ সালের মধ্যে দারিদ্র্যের হার ৪৯ শতাংশ থেকে ৪০ শতাংশে নেমেছিল এবং এই সময়কালে দারিদ্র হ্রাসের যৌগিক হার ছিল বার্ষিক প্রায় ৪ শতাংশ। আমাদের দায়িত্ব পালনকালে শহর ও পল্লী উভয় এলাকাতেই দারিদ্র্যের গভীরতা ও তীব্রতা প্রায় সমভাবে কমানো সম্ভব হয়েছিল।
অর্থনীতির অন্যান্য সূচকেও ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল বাংলাদেশের ইতিহাসে অন্যতম সফল পর্যায় হিসেবে প্রমাণিত হয়েছিল। জেনারেল এরশাদের স্বৈরাচারী শাসনকালের শেষ বছর, অর্থাৎ ১৯৯০-৯১ অর্থবছরে বাংলাদেশে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছিল মাত্র ৩.৫১ শতাংশ। অপরদিকে রাষ্ট্র পরিচালনায় আমাদের সর্বশেষ অর্থবছর অর্থাৎ ২০০৫-০৬ সালে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছিল ৬.৬৩ শতাংশ। দেড় দশকের মধ্যে জিডিপি-র প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি বিএনপি সরকারের দরিদ্র বান্ধব অর্থনৈতিক নীতিরই প্রতিফলন।
শুধু তাই নয়, এই সময়ের মধ্যে আমরা শ্রমঘন ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প খাতে বিস্ময়কর ১১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনে সমর্থ হই। অথচ আওয়ামী লীগের বিগত মেয়াদের শাসনামলের ১৯৯৮-৯৯ অর্থ বছরে এই খাতে প্রবৃদ্ধি ছিল মাত্র ৩.১৯ শতাংশ। আমরা কেবল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দিকেই মনোনিবেশ করি নাই, একই সঙ্গে মানব উন্নয়নের প্রতিও যথাযথ গুরুত্ব আরোপ করেছিলাম।
বিশ্বের দরিদ্র রাষ্ট্রসমূহের আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি নিয়ে ইউএনডিপি’র ২০০৬ সালের প্রকাশিত রিপোর্টে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অর্জনের কথা বলা হয়েছে। ক্ষিধে, প্রাথমিক শিক্ষা, নারী-পুরুষ সমতা, শিশু মৃত্যুর হার এবং সুপেয় পানির ব্যবস্থা, মানব উন্নয়নের এই পাঁচটি সূচকের বিশ্লেষণমূলক রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, শিক্ষা ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ সমতা লক্ষ্যমাত্রা বাংলাদেশ ২০০৩ সালেই অর্জন করেছে।
শিশু মৃত্যুর হার হ্রাসের তৎকালীন ধারা অব্যাহত থাকলে এই ক্ষেত্রে জাতিসংঘের লক্ষ্যমাত্রা ২০১৫ সালের মধ্যে সহজেই অর্জন করা সম্ভব। সার্বিক অবস্থা বিশ্লেষণে ২০০৬ সাল পর্যন্ত মানব উন্নয়নে বাংলাদেশ সঠিক পথেই এগিয়ে যাচ্ছিল। বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নতি লক্ষ্য করে বিশ্বের বিভিন্ন সংস্থা আমাদের মাতৃভূমিকে সেই সময় উদীয়মান অর্থনৈতিক শক্তি বা ইমারজিং টাইগার রূপে অভিহিত করেছিল। ২০০৬ সালের এপ্রিল মাসে বিশ্বের প্রভাবশালী টাইম ম্যাগাজিন ‘রিবিল্ডিং বাংলাদেশ’ শিরোনামে দেশ পুনর্গঠনে আমাদের সাফল্যের কথা কভার স্টোরি আকারে তুলে ধরেছিল। এটাও বলা উচিত যে, সেই সময়ে তেলের দাম খুব বেশি হওয়া সত্ত্বেও আমরা এসব সাফল্য অর্জন করেছিলাম। কিন্তু আপনারা জানেন যে পরবর্তীতে বাংলাদেশের অগ্রগতির সেই ধারাকে রুদ্ধ করা হয়েছে।
এগারই জানুয়ারির তথাকথিত সংস্কারের নামে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান স্থবির এবং দারিদ্র্য হ্রাসের পরিবর্তে দেশে দারিদ্যের হার বৃদ্ধি পেয়েছে।
আমাদের সরকারের পাঁচ বছরে সরকারি সহায়তা এবং নিজ উদ্যোগে জনগণের যে অংশ দারিদ্র্যসীমার ঊর্ধ্বে উঠতে সমর্থ হয়েছিল, সুপরিকল্পিতভাবে তাদেরকে আবারও দারিদ্র্য রেখার নিচে ঠেলে দেয়া হয়েছে। দেশের সার্বভৌমত্বের পাশাপাশি অর্থনৈতিক স্বাধীনতাও আজ হুমকির মুখে পড়েছে। ভবিষ্যতে আবারও সরকার পরিচালনার সুযোগ লাভ করলে দেশের প্রবৃদ্ধি দুই অংকে অর্থাৎ দশ কিংবা তার বেশিতে উন্নীত করা এবং দারিদ্র্যকে শূন্যের ঘরে নামিয়ে আনাই হবে আমাদের প্রধান লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য অর্জনে আমাদের নিজস্ব সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করাই আমাদের ঘোষিত আদর্শ।
জনগণ কিংবা রাষ্ট্রের স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে কখনো কোনো চুক্তি আমরা নিজেরা করিনি, করবোও না। অন্য কেউ জাতীয় স্বার্থবিরোধী কোনো চুক্তি করার উদ্যোগ নিলে জনগণকে সাথে নিয়ে আমরা প্রতিরোধ গড়ে তুলবো।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
প্রহসনের নির্বাচনে আমাদেরকে হারিয়ে দেয়া সত্বেও গণতান্ত্রিক ধারা বজায় রাখার স্বার্থে আমরা ঘোষিত ফলাফল মেনে নিয়েছিলাম। প্রেসিডেন্ট ও মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে আমরা যোগ দিয়েছি। প্রথম দিন থেকে সংসদ অধিবেশনেও বিএনপি অংশ নেয়।
আমরা চেয়েছিলাম, দেশে গণতন্ত্রকে আবার গড়ে তোলার কাজে সর্বাত্মকভাবে সরকারকে সহযোগিতা করবো। কিন্তু কী দেখলাম আমরা?
সংসদে সরকারি দল আমাদেরকে প্রথম দিন থেকেই সহ্য করতে পারেনি। তারা কুৎসিত ও অসংসদীয় ভাষায় আমাদেরকে আক্রমণ করেছে। সামনের সারিতে বিরোধী দলের আসনগুলো তারা দখল করে নিয়েছে। আমাদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান তারা রাষ্ট্রীয় প্রচার মাধ্যমে ব্ল্যাকআউট করেছে। বিরোধী দলের নেতার বক্তব্য প্রচার করতে দেয়নি। আমার বাসায় সংসদের কার্যসূচি পর্যন্ত দিতে দেওয়া হয়না। দেশ ও জনগণের স্বার্থে আমাদের সদস্যরা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনার জন্য সংসদে অসংখ্য নোটিশ দিলেও তা গ্রাহ্য করা হয়না। মর্যাদা বজায় রেখে সংসদে বিরোধী দলের দায়িত্ব পালনকে তারা অসম্ভব করে তুলেছে।
যে সংসদে দেশ এবং জনগণের স্বার্থে কথা বলার সুযোগ নেই সেই সংসদ কতটা কার্যকর সে প্রশ্ন আজ সকলেই তুলছে। সরকারি দলই সংসদকে অকার্যকর করে ফেলেছে। ফলে তাদের দলের সদস্যরাও সংসদ অধিবেশনে যোগ দেওয়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন।
আমরা আরো দেখলাম, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশের সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতা রক্ষার অতন্দ্র প্রহরী সেনাবাহিনীর অর্ধশতাধিক চৌকষ কর্মকর্তা, বেশ ক’জন বিডিআর সদস্য ও সাধারণ মানুষের নির্মম ও নিষ্ঠুর হত্যাকাণ্ডে দেশের প্রতিরক্ষা ও সীমান্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা দুর্বল হয়ে পড়লো। বিভিন্ন অজুহাতে চাকরিচ্যুত করা হলো আরও বেশ কিছু সামরিক কর্মকর্তাকে। ফলে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হলো আরো দুর্বল। এসব ঘটনায় বাইরের কারো লাভ হতে পারে। কিন্তু আমাদের দেশের যে ক্ষতি হয়েছে তা অপূরণীয়। দেশবাসী মনে করে দেশের এই বিরাট ক্ষতির দায় বর্তমান সরকার এড়াতে পারে না।
দেশবাসীর সাথে আমরাও এই নির্মম হত্যাযজ্ঞের উপযুক্ত বিচার এবং প্রকৃত দোষীদের শাস্তি দাবি করছি। কিন্তু প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করার লক্ষ্যে তদন্তে দীর্ঘসূত্রতা এবং বিচারের নামে প্রহসনের অপচেষ্টা চলছে। জনগণ প্রকৃত ঘটনা এবং এই নির্মম হত্যাকান্ডের চক্রান্তকারীদের পরিচয় জানতে চায়।
গত ২৫-২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানার মর্মবিদারক হত্যাযজ্ঞের জন্য আমরা ব্যথিত। ঐ ঘটনায় সকল শহীদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি এবং তাদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। এ যাবতকাল প্রকাশিত বা আংশিক প্রকাশিত ২টি তদন্ত প্রতিবেদনেই নেপথ্যের কুশিলবদের চিহ্নিত করার জন্য ঘটনার অধিকতর তদন্তের সুপারিশ করা হয়েছে ।
কিন্তু তা করা হয়েছে বলে আমরা শুনিনি। আমরা রাজনীতির উর্দ্ধে থেকে পিলখানার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি করছি।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
অনেক কষ্টে আমরা জাতীয় সশস্ত্রবাহিনীকে গড়ে তুলেছি। স্বাধীনতার পর এই বাহিনী ছিল অবহেলা ও বৈষমের শিকার। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এই বাহিনীকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলেছিলেন।
মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে গঠিত আমাদের সশস্ত্রবাহিনী দেশের স্বাধীনতা এবং সার্বভৌমত্ব রক্ষায় অতন্দ্র প্রহরী। দেশে-বিদেশে বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে তারা নিজেদেরকে এক গৌরবজনক অবস্থানে নিয়ে গেছে।
আমরা আমাদের দায়িত্বকালীন সময়ে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি শক্তিশালী ও পেশাদার সশস্ত্রবাহিনী গড়ে তোলার। ১৯৭৫ সালের নভেম্বর পূর্ববর্তী এবং আমাদের দায়িত্বকালীন সশস্ত্রবাহিনীর বিভিন্ন পরিসংখ্যানই বলে দেয় কোন অবস্থা থেকে কোথায় সশস্ত্রবাহিনীকে নেয়া হয়েছে।
১৯৯১-১৯৯৬ মেয়াদকালে জাতিসংঘ মিশনে অধিকসংখ্যক সশস্ত্রবাহিনীর সদস্যদেরকে পাঠানোর কাজ আমরাই শুরু করি । সেই সূত্র ধরে বাংলাদেশ আজ জাতিসংঘ শান্তিমিশনে অন্যতম শীর্ষস্থানীয় সৈন্য প্রেরণকারী দেশ।
এক-এগারো পরবর্তী সময়কালে কিছু কিছু সামরিক কর্মকর্তার কিছু কার্যক্রম বিতর্কিত হলেও তা সার্বিকভাবে সশস্ত্র বাহিনীর কার্যক্রম হিসেবে বিবেচনা করে তাদের উপর বিরূপ মনোভাব পোষণ করার সুযোগ নেই। আমরা অনেকের মতো অতীতমুখী এবং প্রতিহিংসায় বিশ্বাসী নই।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
সেনা কর্মকর্তাদের হত্যাকাণ্ড, সমুদ্রসীমা নির্ধারণ, সমুদ্রে তেল-গ্যাস ব্লক ইজারা দেয়া, টিপাইমুখে বাঁধ নির্মাণ, এশিয়ান হাইওয়ের ছদ্ম আবরণে ভারতকে করিডোর দেয়া এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে সেনা প্রত্যাহারের মতো জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সরকারের একলা চলার নীতি, জনগণকে এসব বিষয়ে দেশের স্বার্থ রক্ষায় সরকারের আন্তরিকতা নিয়ে সন্দিহান করে তুলেছে।
প্রতিনিয়ত সীমান্তে বাংলাদেশী মানুষ খুনের বিরুদ্ধে কোনো কার্যকর প্রতিরোধ গড়ে তোলা তো দূরের কথা সরকার এ ব্যাপারে শক্ত প্রতিবাদ পর্যন্ত জানাতে পারেনি। অন্যদিকে এশিয়ান হাইওয়ের নামে ভারতকে করিডোর দেয়ার পক্ষে সরকারের মন্ত্রিদের বক্তব্য এবং টিপাইমুখে বাঁধ নির্মাণ হলে বাংলাদেশ বরং উপকৃত হবে সরকারি দলের নেতা ও মন্ত্রীদের এমন বক্তব্য দেশবাসীকে শঙ্কিত করে তুলেছে।
দেশের জনগণের ক্রমবর্ধমান দৈনন্দিন প্রয়োজন মেটানো এবং শিল্প উন্নয়নের জন্য আমাদের তেল, গ্যাস ও কয়লাসহ বিভিন্ন খনিজ সম্পদের অনুসন্ধান ও আহরণের বিকল্প নেই। প্রয়োজনে বিদেশীদের সহায়তাও নিতে হবে। কিন্তু তা করতে হবে স্বচ্ছতা ও জাতীয় স্বার্থ বজায় রেখে।
এসব সম্পদের মালিক দেশের জনগণ। কাজেই এসব বিষয়ে দেশের জনগণের সবকিছু জানার অধিকার আছে বলে বিএনপি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে।

প্রিয় বোন ও ভাইয়েরা,
ফারাক্কা বাঁধের বিরূপ প্রভাবে দেশের উত্তর, মধ্য ও দক্ষিণাঞ্চল দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। টিপাইমুখে বাঁধ হলে দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলও বিপুল ক্ষতির শিক্ষার হবে বলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন।
সমুদ্রপৃষ্ঠে পানির উচ্চতা বাড়ছে এবং তার ফলে দেশের গোটা দক্ষিণাঞ্চল বিপর্যয়ের শিকার হতে পারে। এসব মাথায় রেখেই দেশ ও জনগণের স্বার্থে আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নির্ধারণ করবো।
বাংলাদেশের জনগণের স্বার্থে বিএনপি বিশ্বের সকল রাষ্ট্রের সাথে সার্বভৌম সমতার ভিত্তিতে পারস্পরিক সম্পর্ক রক্ষার নীতিতে বিশ্বাস করে। আমরা মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও সংহতি সুদৃঢ় করার লক্ষ্যে বিশ্বের সব মুসলিম দেশের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের নীতিতে অটল থাকবো।
পারস্পরিক সুসম্পর্ক বজায় রাখবো বিশ্বের সব দেশের সাথে। কমনওয়েলথ, জোট নিরপেক্ষ আন্দোলন এবং ওআইসি-র সাথে আমাদের দৃঢ় সম্পর্ক অব্যাহত থাকবে। প্রতিবেশীদের সাথে সম্পর্ক উন্নয়ন এবং আঞ্চলিক সহযোগিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সার্ককে আরও কার্যকর করার চেষ্টা আমরা চালিয়ে যাবো।
বিশ্ব শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষায় জাতিসংঘ ও তার সহযোগী সংস্থাসমূহের ভূমিকা পালনে আমরা আগের মতোই সমর্থন জানাবো।
বিশ্ব জলবায়ূ পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবে পরিবেশ বিপর্যয়ের অনিবার্য হুমকি মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক প্রয়াসে আমরা সক্রিয়ভাবে অংশ নেব। কোপেন হেগেনে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন চলছে। আমরা আশা করি, সম্ভাব্য এই বিপর্যয়ের জন্য দায়ী শিল্পোন্নত ও বৃহৎ রাষ্ট্রসমূহ এই সমস্যা মোকাবেলার মূল দায়িত্ব গ্রহণ করবে। স্বল্পোন্নত দেশসমূহকে অনিবার্য দুর্যোগ ও সমস্যা মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় অর্থনৈতিক ও কারিগরী সহযোগিতা দেয়ার নৈতিক দায়িত্বও তাদের নেয়া উচিত।
বিশ্ব বাণিজ্যে স্বল্পোন্নত দেশসমূহের বিশেষ সুবিধাসহ অবাধে অংশগ্রহণের সুযোগ নিশ্চিত করণ জরুরি বলে আমরা মনে করি। আমরা এটাও চাই অর্থ, প্রযুক্তি এবং পণ্যের মতোই শ্রম বাজারও উন্মুক্ত করা হোক।
ফিলিস্তিনে জনগণসহ সারা দুনিয়ার মুক্তিকামী মানুষের ন্যায় সঙ্গত আন্দোলনের প্রতি আমাদের সমর্থন থাকবে।
গণতন্ত্রে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাসী বিএনপি সব ধরনের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। আর তাই, দেশে এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সন্ত্রাস নির্মূলের লক্ষ্যে বিএনপি আগের মতোই দেশে সক্রিয় ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সহযোগীর ভূমিকা পালন করবে।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
ইতিহাস সাক্ষী, আমরাই দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেছি; সংসদীয় ব্যবস্থা পুনঃপ্রবর্তন করেছি। আমরাই সংবাদপত্র, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ফিরিয়ে দিয়েছি।
আমরাই গ্রাম সরকার গঠনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে তৃণমূল পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিলাম। আমরাই স্বাধীন দুর্নীতি দমন কমিশন গঠন করেছি। দেশের উন্নতি এসেছে আমাদেরই হাত ধরে। গার্মেন্টস শিল্পের প্রতিষ্ঠা, বৈদেশিক কর্মসংস্থান, সমুদ্রে মৎস শিকার, অপ্রচলিত পণ্যের রপ্তানি, ক্ষুদ্র ঋণ ব্যবস্থা অর্থাৎ গৌরব করার মতো সবকিছু শুরু হয়েছে বিএনপি সরকারের সময়ে বিএনপি সরকারের উদ্যোগে।
কৃষি ও শিল্প বাণিজ্যের উন্নতি ঘটিয়ে, দেশী-বিদেশী বিনিয়োগ আকৃষ্ট করে, অধিকতর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে, জনসংখ্যার অর্ধেক নারী এবং বিশাল যুব শক্তিকে প্রশিক্ষণ ও ঋণ দিয়ে স্বাবলম্বী ও উৎপাদনশীল করে আমরাই দেশকে তলাহীন ঝুড়ির অপবাদ থেকে মুক্ত করেছি।
শতকরা ১০০ ভাগ বিদেশী ঋণ ও সাহায্য নির্ভর উন্নয়ন বাজেটের পরিবর্তে শতকরা ৬০ ভাগের বেশী দেশীয় সম্পদ নির্ভর উন্নয়ন বাজেট করেছি আমরাই।
শিক্ষা খাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দিয়ে, শিক্ষাকে নকল ও সেশনজট মুক্ত করে, জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা করে, ব্যক্তি খাতে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ দিয়ে, শিক্ষার জন্য খাদ্য কর্মসূচি ও উপবৃত্তি প্রথা চালুর মাধ্যমে শিক্ষা, বিশেষ করে নারী শিক্ষায় যুগান্তকারী বিপ্লব ঘটেছে, আমাদেরই সময়ে। যা দেশে-বিদেশে বিপুলভাবে প্রসংশিত হয়েছে।
আপনারা জানেন বিএনপির কথার সঙ্গে কাজের মিল থাকে। কিন্তু দেখুন বর্তমান সরকারের গত এক বছরে কি হয়েছে?
জনগণের সমর্থন লাভের জন্য আওয়ামী লীগ তার নির্বাচনী ইশতেহারে প্রতি পরিবারে একজন করে মানুষকে চাকরি দেয়ার প্রতিশ্র”তি দিয়েছিল। ইতিমধ্যেই প্রমাণ হয়েছে যে, তাদের এই প্রতিশ্র”তি ছিল ফাঁকি দিয়ে ভোট পাওয়ার অপকৌশল মাত্র।
বাস্তবতা হলো এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর গত প্রায় এক বছরে বহু শিল্প প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। গত প্রায় ১ বছরে শুধু গার্মেন্টস সেক্টরের ১৬৭টি কারখানা বন্ধ হয়েছে। চাকরি হারিয়েছে লক্ষাধিক শ্রমিক। দেশী-বিদেশী বিনিয়োগ হচ্ছে না বলে নতুন কর্মসংস্থান হচ্ছে না। উন্নয়নমূলক কাজ প্রায় বন্ধ। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী বাস্তবায়নে স্থবিরতার কারণে গ্রামের মানুষেরা সাময়িক কাজ পাওয়ার সুযোগ থেকেও বঞ্চিত রয়েছে। ফলে কর্মহীন মানুষের সংখ্যা ক্রমাগত বেড়েই চলেছে।
দেশে দুটি ছোট জেলায় কিছু মানুষকে অস্থায়ী কাজ দেয়ার পরিকল্পনা সরকারি নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পালনের লক্ষ্যে কোনো যুক্তিযুক্ত পদক্ষেপ নয়। এক বছরে যদি দুটি ছোট জেলায় এতো অল্প সংখ্যক বেকার মানুষকে অস্থায়ী কাজে নিযুক্ত করা হয়, তাহলে সারা দেশের প্রতি পরিবারে একজন করে মানুষকে স্থায়ী কাজ দিতে কয়েক যুগ সময় লাগবে। অর্থাৎ সরকার এ ব্যাপারেও তার নিবাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ হতে চলেছে।
চাকরি দেয়ার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক আনুগত্য বিবেচনা করা হচ্ছে এবং যোগ্য ও দক্ষ কর্মকর্তাদের চাকরি থেকে বের করে দেয়া হচ্ছে। প্রশাসন থেকে তো বটেই এমনকি সশস্ত্র বাহিনীতেও তাই ঘটছে। এর ফলে জনপ্রশাসন এবং প্রতিরক্ষা বাহিনী দুর্বল হচ্ছে যা দেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে চলেছে।
দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা নিশ্চিত করে জনগণের জান-মাল ও সম্পত্তি রক্ষার সরকারি প্রতিশ্রুতি ইতিমধ্যেই প্রহসনে পরিণত হয়েছে। সরকারি ঘোষণা অনুযায়ীই দেশে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, খুনের সংখ্যা বেড়েছে। আইনবহির্ভুত হত্যার সংখ্যাও বেড়েছে। সরকারি দলের লোকদের চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, দখলবাজি, প্রতিপক্ষের উপর হামলা-মামলা, হাট-বাজার, খাল-বিল, বাড়ি-ঘর দখলের ঘটনা ক্রমাগত বেড়েই চলেছে।
ইউনিভার্সিটি ও কলেজে ছাত্রছাত্রীদের হল দখল, শিল্প-প্রতিষ্ঠানে ট্রেড ইউনিয়ন দখল, অফিস আদালতে পদ দখল, ব্যবসা-বাণিজ্য দখল এমন কি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ফুটপাথ পর্যন্ত সরকারি দলের ক্যাডাররা দখল করে নিয়েছে। প্রতিপক্ষের বাড়ি-ঘর অফিসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত।
দেশের শান্তিপ্রিয় জনগণ ঘরে-বাইরে কোথাও নিরাপদ বোধ করতে পারছে না। তাদের মধ্যে বিক্ষোভ ও হতাশা বাড়ছে। এখন দেশের জনগণ প্রকাশ্যেই বলছে, সরকার দিনবদল করতে পারেনি সময় বদল করে শুধু জনগণের ভোগান্তি বাড়িয়েছে।
ডিজিটাল বাংলাদেশ নয় টালমাটাল বাংলাদেশ গঠনে এই সরকার উঠেপড়ে লেগেছে।
এই অবস্থা থেকে মুক্তির জন্য দেশবাসী বিএনপির দিকে তাকিয়ে আছে। তারই প্রতিফলন ঘটেছে গত কয়েক দিনে পত্রপত্রিকার প্রথম পৃষ্ঠায়। সবাই জানতে চেয়েছে বিএনপি জাতীয় কাউন্সিলে কি হবে? সেটাই এখন আপনাদের বলছি।
দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব সুরক্ষা এবং জনগণের জন্য তা অর্থবহ করার দায়িত্ববোধ থেকে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান গঠন করেছিরেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল- বিএনপি।
দীর্ঘ ৩১ বছর ধরে আমরা সবাই মিলে সেই দায়িত্ববোধ নিয়েই দেশ ও দেশের মানুষের জন্য কাজ করে চলেছি।
গণতন্ত্রকামী দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী শক্তি আজ বিএনপির পতাকার নিচে। দেশের প্রত্যেকটি দুঃসময়ে আমরা দেশবাসীর পাশে থেকেছি। দেশের স্বার্থ এবং গণতন্ত্রের উপর যখনই আঘাত এসেছে সবার আগে এবং সবচেয়ে সাহসিকতা নিয়ে বিএনপি দাঁড়িয়েছে তা প্রতিহত করার জন্য। এর জন্য মূল্যও আমাদের কম দিতে হয়নি। শহীদ জিয়া জীবন দিয়েছেন। আর আমাদেরকে সহ্য করতে হয়েছে অনেক জুলুম-নির্যাতন।
সেই জুলুম-নির্যাতন এখনও চলছে। এখনও প্রতিনিয়ত মিথ্যা মামলা দিয়ে দলের নেতা-কর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে। বার বার রিমাণ্ডে নিয়ে চরম অত্যাচারের মাধ্যমে তাদের পছন্দমতো স্বীকারোক্তি আদায় করে মিথ্যা মামলা সাজানো হচ্ছে। ন্যায়বিচারের আশাও ক্রমেই সুদূর পরাহত হয়ে যাচ্ছে। অবস্থা এখন এমনই দাঁড়িয়েছে যে, উচ্চ আদালতের একজন সম্মানিত বিচারপতি সরকারের কর্মকর্তাদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন : “পারলে আমাদেরকেও রিমাণ্ডে নিয়ে নির্যাতন করুন। হাইকোর্ট তুলে দিন।”

প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
নতুন করে দুঃশাসন আজ আবার জাতির উপর জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসেছে। কাজেই আমাদেরকে আবারও তৈরি হতে হবে কঠোর কঠিন সংগ্রামের জন্য।
এর জন্য প্রয়োজন শুধু নিজেদের ঐক্য এবং জনগণকে পাশে পাওয়া। আগামী দিনে এটাই হবে আমাদের প্রধান কাজ।
এই তো সেদিন আমাদেরকে ইমার্জিং টাইগার বলা হয়েছিল। আমরা সত্যিই টাইগার হতে পারি।
প্রয়োজন শুধু ঐক্য সংহতি ও দেশপ্রেম। প্রয়োজন শুধু অন্য সবার স্বার্থের চেয়ে দেশের স্বার্থ বেশি করে দেখা। অন্যায়, অনাচার, লোভ, দুর্নীতি, ক্ষমতার মোহ এবং নতজানু নীতি পরিহার করা। আমরা এটা পারি। আমরা এটা পারবো, ইনশাআল্লাহ।
আমরা পারবো গণতন্ত্রের শত্রু সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসকে মোকাবেলা করতে। আমরা পারি দেশ ও জনগণের স্বার্থে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে। যারা গণতন্ত্র হত্যা করে একদলীয় স্বৈরশাসন প্রবর্তন করেছিল, তারা আবার সেই একই অপরাধ করতে পারে।
যারা অবৈধ পন্থায় ক্ষমতায় এসে অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশকে অন্তত ২০ বছর পিছিয়ে দিয়েছে, তারাও আবার সেই অপরাধ আবার করতে পারে। আমাদেরকে তাই হুঁশিয়ার থাকতে হবে।
হুঁশিয়ার থাকতে হবে মহল বিশেষের মিথ্যা ও উদ্দেশ্যমূলক প্রচারণা সম্পর্কে। সচেতনভাবে রক্ষা ও শক্তিশালী করতে হবে দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী, গণতান্ত্রিক শক্তির ঐক্যকে। ধর্মান্ধতা কিংবা ধর্মের বিরুদ্ধে রাজনীতি এর কোনোটাই আমাদের কাম্য নয়। এদেশের সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষ আমাদের ভাই-বোন। সবাই এদেশের গর্বিত নাগরিক। আমরা সবাই বাংলাদেশী হিসাবে গর্ব নিয়ে বাঁচতে চাই।
আর তাই আজ এই সম্মেলন থেকে দলমত নির্বিশেষ সকল দেশ্রপ্রেমিক নাগরিক, সকল রাজনৈতিক দল, ছাত্র, যুব, শ্রমিক, কৃষক, মহিলা, সাংস্কৃতিক-সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠনর প্রতি আহ্বান জানাই, আসুন, দেশ, জাতি ও জনগণের কল্যাণে আমরা ঐক্যবদ্ধ হই। গণতন্ত্র ও স্বাধীনতাকে অর্থবহ করে তুলি।
আইনের শাসন কায়েমের মাধ্যমে সমাজ থেকে চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস, দুর্নীতি ও অনাচার দূর করি। দেশকে আত্মনির্ভরশীল এক মর্যাদাবান জাতি হিসাবে গড়ে তুলি। আমাদের এই আন্তরিক আকাঙ্খার প্রকাশ হিসাবে আমাদের এবারের কাউন্সিলের স্লোগান হয়েছে- ‘নানান মানুষ নানান পথ, দেশ বাঁচাতে ঐক্যমত’।
আসুন, দেশ ও জনগণকে বাঁচাতে একমত হয়ে এক সঙ্গে এগিয়ে যাই।
প্রেসিডেন্ট জিয়া দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের পর বিএনপিতে বহু প্রতিভাশালী, জ্ঞানী-গুণী লোকের আগমন ঘটিয়েছিলেন। আমার সৌভাগ্য, আমি তাদের কারো কারো সাহায্য পেয়েছিলাম। কিন্তু দেশে বিরাজনীতিকরণ প্রক্রিয়ার ফলে দেশপ্রেমিক অনেকেই এখন রাজনীতিবিমুখ হয়ে পড়েছেন। তাই বিএনপির বর্তমান নেতা-কর্মীদের প্রতি আমার আবেদন, আপনারা দলীয় শৃঙ্খলা ও আনুগত্য বজায় রাখার পাশাপাশি দলের মধ্যে নতুন যোগ্য, দক্ষ ও গুণী মানুষকে নিয়ে আসুন।
আর এই মহতি সমাবেশ থেকে আমি সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি,

১. বিরোধী দলকে তার প্রাপ্য মর্যাদা দিন, জনগণের পক্ষে কথা বলার পর্যাপ্ত সুযোগ দিন, অহেতুক ও মিথ্যা অভিযোগ করা থেকে বিরত থাকুন। মিথ্যা মামলা, হয়রানি, নির্যাতন বন্ধ করুন। দেশ ও জনগণের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট কোনো বিষয়ে গোপন সিদ্ধান্ত না নিয়ে সংসদে আলোচনার ব্যবস্থা নিন। আমরা সংসদকে কার্যকর কতে সহযোগিতা করবো।
২. দেশের ও জনগণের পক্ষে কাজ করুন। নিজেদেরই ঘোষিত নির্বাচনী প্রতিশ্র”তি বাস্তবায়নের জন্য কাজ করুন। আমরা গঠনমূলক সহযোগিতা দেবো।
কিন্তু দেশের স্বার্থহানিকর কিংবা জনগণের স্বার্থবিরোধী কোনো কাজ করলে আমরা অবশ্যই তার প্রতিবাদ করবো। প্রয়োজনে জনগণকে সাথে নিয়ে গড়ে তুলবো আন্দোলন ও প্রতিরোধ।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
এ দেশ পনেরো কোটি মানুষের দেশ। মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি। ভাই-বোনের রক্তে পুনরুদ্ধার করেছি হারানো গণতন্ত্র। আমাদের ভৌগলিক অবস্থান ও পতাকার গায়ে মিশে আছে সেই শহীদদের রক্তের দাগ। স্বজন হারানো মা-বোনের চোখের পানিতে ভিজে আছে এদেশের মাটি।
এই দেশ আমাদের দেশ। এই দেশের বাইরে আমাদের বন্ধু আছে, কিন্তু কোনো প্রভু নেই।
এই দেশ মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃস্টান সকলের। সমতল ও পাহাড়ি জনগোষ্ঠির। এই দেশের ধর্ম, ভাষা ও সংস্কৃতি আমাদের নিজস্ব সম্পদ, গর্বের ধন। এসব আমরা লালন করবো স্বাধীনভাবে গভীর মমতায়। বাংলাদেশী হিসাবে আমরা এক ও অভিন্ন জাতিসত্ত্বার অধিকারী।
মনে রাখবেন, যে বেকার ভাই তার স্ত্রী-সন্তানের মুখে খাবার দিতে পারছেন না, যে দুঃখী বোন রুগ্ন সন্তানকে চিকিৎসা দিতে পারছেন না, যে অসহায় কিশোর অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে আছে, তাদের জন্যই আমরা রাজনীতি করি। তাদের মুখে হাসি ফোটানো না গেলে বৃথাই হবে আমাদের সকল কর্ম প্রয়াস। বৃথাই হবে স্বাধীনতা। বৃথাই হবে গণতন্ত্র। তাই ব্যর্থ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই আমাদের। আমাদেরকে সফল হতেই হবে।

শহীদ জিয়ার আদর্শের প্রিয় সৈনিকেরা,
আমার একটা স্বপ্ন আছে। এ স্বপ্ন কোনো ব্যক্তিগত স্বপ্ন নয়। এ স্বপ্নের বিস্তার ৫৬ হাজার বর্গমাইল জুড়ে। এ স্বপ্ন বাংলাদেশের ভবিষ্যত নিয়ে। এ দেশের মানুষের জন্য একটি সুন্দর ভবিষ্যত গড়ে তোলার স্বপ্ন নিয়েই আমি একদিন রাজনীতির অনিশ্চিত পথে পা বাড়িয়েছি। বিসর্জন দিয়েছি নিজের ব্যক্তিগত সব স্বপ্নকে। আমার স্বপ্নের পথে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেছি বাংলাদেশকে। বার বার ষড়যন্ত্র এসে ব্যর্থ করতে চেয়েছে আমার স্বপ্নকে। কিন্তু আমার স্বপ্ন ভাঙ্গেনি। বিপর্যয়ের মধ্য থেকে আমরা উঠে দাঁড়িয়েছি নতুন স্বপ্ন নিয়ে। এ স্বপ্ন বাংলাদেশকে গড়ে তোলার স্বপ্ন। এ স্বপ্ন মানুষের মুখে হাসি ফোটাবার স্বপ্ন। আগামীতে আমরা সবাই মিলে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবো।
আমাদের পার্টিকে সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়নের হাতিয়ার হিসাবে মজবুত করে গড়ে তুলতে হবে। সেই লক্ষ্যেই আজকের এই সম্মেলন হবে বিএনপিতে গুণগত পরিবর্তন আনার সম্মেলন। সেই পরিবর্তনের মধ্যদিয়ে বিএনপি হবে আমাদের কর্মসূচি বাস্তবায়নের উপযুক্ত মাধ্যম। আমাদের সে কর্মসূচির মধ্যে থাকবে:

১. দেশের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সক্রিয়, শক্তিশালী ও কার্যকর করা।
২. জনগণের মৌলিক অধিকার তথা- অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও বাসস্থানের অধিকার নিশ্চিত করা।
৩. আইনের শাসন, সার্বজনীন মানবাধিকার ও সামাজিক ন্যায়-বিচার প্রতিষ্ঠা এবং জনগণের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে সুশাসন কায়েম করা।
৪. দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও অনাচার কঠোর হাতে দমন করা।
৫. জনসংখ্যাকে জনশক্তিতে রূপান্তরিত করে দেশে-বিদেশে তাদের শ্রম বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি করে জাতীয় উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা।
৬. প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে বাংলাদেশকে একুশ শতকের উপযোগি করে গড়ে তোলা ও দক্ষ মানব সম্পদ তৈরির লক্ষ্যে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও আই.টি. সেক্টর প্রসারে নানামুখী উদ্যোগ নেয়া হবে। এসব ক্ষেত্রে শিক্ষা ও গবেষণার জন্য জাতীয় বাজেটে আরো বেশি করে অর্থ বরাদ্দ করা হবে।
৭. নারী সমাজ ও যুবশক্তিকে উৎপাদনশীল কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে পর্যাপ্ত শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, ঋণ ও প্রাসঙ্গিক অন্যান্য সহায়তা দেয়া হবে।
৮. ভূমিহীন, বিত্তহীন ও দরিদ্র জনগণের জন্য সম্মানজনক জীবন ও জীবিকা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কর্মসংস্থানমূলক শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও সহজশর্তে ঋণদানের ব্যবস্থা এবং আত্মকর্মসংস্থানে উদ্ভুদ্ধ করা।
৯. খাদ্যে স্বয়ংসম্পুর্ণ হওয়ার লক্ষ্যে দেশের প্রতিটি ইঞ্চি ভূমি আমরা কাজে লাগাতে চাই সমন্বিত কর্মসূচীর আওতায়। কৃষিজীবি জনগণকে প্রয়োজনীয় সব সহায়তা দেয়া হবে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও শুষ্ক মৌসুমে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য খাল, বিল, নদী, নালা খনন-পুনঃখননের কর্মসূচী পূণরায় চালু করবো আমরা। দেশের যেখানে যে ফসলের সর্বোচ্চ উৎপাদন হয়-সেখানে তা’ উৎপাদনে, সংরক্ষণে ও বিপণনে সর্বাত্মক সহায়তা দিয়ে কৃষি উন্নয়নে আমরা বিপ্লব ঘটাতে চাই।
১০. দেশী শিল্পপ্রতিষ্ঠান সমূহকে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় টিকে থাকার জন্য সর্বাত্মক সহায়তা দেয়া হবে।
১১. আমদানি-বিকল্প এবং রপ্তানীমুখী শিল্প-বাণিজ্যকে প্রয়োজনীয় সব সহায়তা দেয়া হবে। কর্মসংস্থান সৃষ্টির সকল প্রয়াসকে উৎসাহিত করা হবে যাতে কেউ বেকার না থাকে এবং পাশাপাশি সেবা খাত সম্প্রসারিত করা হবে।
১২. সর্বক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বাড়ানোর লক্ষ্যে শহীদ জিয়া প্রবর্তিত উৎপাদনের রাজনীতি বাস্তবায়ন করা হবে।
১৩. দুঃস্থ ও গ্রামীন জনগোষ্ঠীর মধ্যে শিক্ষা বিস্তার, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, সমবায়, ক্ষুদ্রঋণ, ক্ষুদ্র কুটির শিল্প উন্নয়ন এবং জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের মত কর্মকান্ডে সরকারী প্রয়াসের সাথে বেসরকারী সংগঠনসমূহ ও দাতা সংস্থাগুলোর কর্মকান্ডে উৎসাহ দেয়া হবে এবং সর্বোত্তম ফলাফল লাভের লক্ষ্যে সমগ্র কর্মকান্ড সমন্বিত করা হবে।
১৪. ‘জনগণের জন্য যাতায়াত ব্যবস্থা’ হবে যোগাযোগ ক্ষেত্রে আমাদের নীতি। সাধারণ মানুষের জন্য সড়ক, রেল ও নৌ যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটানো হবে-যাতে তারা সুলভে, সহজে, নুন্যতম সময়ে নিরাপদে গন্তব্যে পৌছাতে পারেন। যানজট নিরসনে বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নেয়া হবে।
১৫. এমপ্লয়মেন্ট ভিসা নিয়ে ভারত ও শ্রীলংকার হাজার হাজার নাগরিক বাংলাদেশে কাজ করছে এবং বৈদেশিক মুদ্রায় বেতন নিচ্ছে। বাংলাদেশের নাগরিকরাও যাতে এই অধিকার পায় তা নিশ্চিত করার পদক্ষেপ নেয়া হবে।
১৬. প্রবাসী বাংলাদেশীদের দেশে বিনিয়োগে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে বিশেষ সুযোগ সুবিধা দেয়া হবে।
১৭. বাংলদেশী নাগরিকদের সাথে যৌথ মালিকানায় বিনিয়োগে বিদেশী ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানসমূহকে বিশেষ সুবিধা দেয়া হবে। যাতে আমাদের দেশে আরও নতুন শিল্পোদ্যোক্তা গড়ে উঠে এবং মুনাফার সব টাকা বিদেশে চলে না যায়।
১৮. বাজার অর্থনীতির মাধ্যমে দেশের কল্যাণ নিশ্চিত করা লক্ষ্যে এই ব্যবস্থার সম্ভাব্য কুফল রোধের জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেয়া হবে। সরকার, মালিক, শ্রমিকদের যৌথ সহায়তায় ও উদ্যোগে বন্ধ শিল্প চালুর ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং শ্রমঘন শিল্প প্রতিষ্ঠায় বিশেষ সহায়তা দিয়ে বেকারদের জন্য অধিক কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে।
১৯. বিদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি, নতুন শ্রমবাজারের অনুসন্ধান এবং দক্ষ শ্রমশক্তি পাঠানোর লক্ষ্যে বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের দুতাবাস সমূহকে আরও শক্তিশালী ও কার্যকর করার পাশাপাশি দেশে দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টি ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে বিরাজমান দুর্বলতাগুলো দুর করা হবে-যাতে কেউ কোনভাবেই প্রতারিত না হন। একই সাথে বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশীদের জাতীয় উন্নয়ন প্রয়াসে আরও বেশী করে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে প্রাসঙ্গিক সব বিষয়ে তাদের মতামত ও পরামর্শ নেয়া হবে। তাদের সুযোগ সুবিধা বাড়ানো হবে এবং তাদেরকে ভোটার করার উদ্যোগ নেয়া হবে।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা,
আমাদের পথ দীর্ঘ হতে পারে। সামনে থাকতে পারে অনেক চড়াই উৎরাই। কিন্তু আপনারা আত্মবিশ্বাস হারাবেন না। আমরা গন্তব্যস্থলে ঠিকই পৌঁছাবো। দেখুন, এক-এগারো, জেল-জুলুম, প্রহসনের নির্বাচন সবকিছু পেরিয়ে বিএনপি ঘুরে দাঁড়িয়েছে। আজ আপনাদের এই সুবিশাল উপস্থিতি বিশ্ববাসীর কাছে তারই এক বিরাট ঘোষণা।

উপস্থিত সুধীমণ্ডলী,
দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের যে সকল সম্মানিত নেতা আমাদের কাউন্সিলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছেন তাদেরকে আমি ধন্যবাদ জানাই। বিশেষ করে বিদেশী মেহমানরা ও আমন্ত্রিত অতিথিরা আমাদের এই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে অনুষ্ঠানের মর্যাদা ও গুরুত্ব বাড়িয়েছেন বলে আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। যারা শুভেচ্ছা বাণী পাঠিয়েছেন তাদের প্রতি জানাচ্ছি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।
এই অনুষ্ঠান সফল করার জন্য যারা দিনরাত সীমাহীন পরিশ্রম করেছেন এবং যারা নানাভাবে সহায়তা করেছেন তাদেরকেও জানাই অনেক অনেক ধন্যবাদ।

আল্লাহ হাফেজ – বাংলাদেশ জিন্দাবাদ।
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল জিন্দাবাদ।

Check Also

Muradnagar=23-03-19=

করিমপুর মাদরাসায় বোখারী শরীফের খতম ও দোয়া

মো. হাবিবুর রহমান :– কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার করিমপুর জামিয়া দারুল উলূম মুহিউস্ সুন্নাহ মাদরাসায় ১৪৪০ ...